ঢাকা ০৭:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com

করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে ৩৮ দিনমজুরকে রাখা হলো স্কুল ভবনে

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত সময় ০৯:৩৪:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল ২০২০
  • / 9

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধিঃ পাবনার ভাঙ্গুড়ায় করোনাভাইরাস সংক্রামণ প্রতিরোধে ৩৮ জন বহিরাগত দিনমজুরকে স্কুল ভবনে হোম কোয়ারেটিনে রাখা হয়েছে। বুধবার গভীর রাতে ঐ দিনমজুররা ভাঙ্গুড়ায় ফিরে আসে। তারা বরিশালে গত একমাস ধরে মাটি কাটার ট্রলারে দিনমজুরের কাজ করছিল।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার খানমরিচ ইউনিয়নেরর পরমানন্দপুর শ্রীপুর, পুকুরপাড় ও কয়ড়া গ্রামের ৩৮ জন দিনমজুর গত এক মাস আগে বরিশালে কাজের উদ্দ্যেশে যায়। সেখানে তারা এতোদিন মাটিকাটা ট্রলারে শ্রমিকের কাজ করছিলা।

এদিকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমাণের মধ্যেও তারা সেখানেই মাটিকাটা কাজ করছিল। কিন্তু সেখানে স্থানীয় প্রশাসনের চাপে গত তিনদিন আগে ট্রলারে মাটি কাটার কাজ বন্ধ হয়ে যায়।

এমন অবস্থার মধ্যে তাদের কাজ না থাকায় তারা নদীপথে বুধবার গভীর রাতে ভাঙ্গুড়াতে এসে পৌঁছাবে এমন খবর পায় গ্রামবাসী। বিষয়টি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নিকট জানানো হয়। এরপর রাতে ওই দিনমজুররা গ্রামে পৌঁছালে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা তাদেরকে বাড়িতে যেতে না দিয়ে পুকুরপাড় আইডিয়াাল স্কুলের ভবনে তাকার ব্যবস্থা করে দেন।

বৃহস্পতিবার সকালে ওই দিনমজুরদের স্বজনরা তাদেরকে বাড়িতে নিয়ে যেতে আসে। কিন্তু ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা প্রশাসনের সাতে আলোচনা করলে উপজেলা প্রশাসন তখন ঐ দিনমজুরদের স্কুল ভবনে হোম কোয়ারেটিনে রাখতে নির্দেশ দেন।

জানা গেছে, শুক্রবার উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ঐ দিনমজুরদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবেন।

ঘটনার বিষয়ে খানমরিচ ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুর রহমান বলেন, গ্রামের মানুষদের করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঝুঁকি থেকে মুক্ত রাখতে উপজেলা প্রশাসনের পরামর্শে বহিরাগত দিনমজুরদের আলাদা করে রাখা হয়েছে। শুক্রবার স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শ অনুয়ায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে ৩৮ দিনমজুরকে রাখা হলো স্কুল ভবনে

প্রকাশিত সময় ০৯:৩৪:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ এপ্রিল ২০২০

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধিঃ পাবনার ভাঙ্গুড়ায় করোনাভাইরাস সংক্রামণ প্রতিরোধে ৩৮ জন বহিরাগত দিনমজুরকে স্কুল ভবনে হোম কোয়ারেটিনে রাখা হয়েছে। বুধবার গভীর রাতে ঐ দিনমজুররা ভাঙ্গুড়ায় ফিরে আসে। তারা বরিশালে গত একমাস ধরে মাটি কাটার ট্রলারে দিনমজুরের কাজ করছিল।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার খানমরিচ ইউনিয়নেরর পরমানন্দপুর শ্রীপুর, পুকুরপাড় ও কয়ড়া গ্রামের ৩৮ জন দিনমজুর গত এক মাস আগে বরিশালে কাজের উদ্দ্যেশে যায়। সেখানে তারা এতোদিন মাটিকাটা ট্রলারে শ্রমিকের কাজ করছিলা।

এদিকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমাণের মধ্যেও তারা সেখানেই মাটিকাটা কাজ করছিল। কিন্তু সেখানে স্থানীয় প্রশাসনের চাপে গত তিনদিন আগে ট্রলারে মাটি কাটার কাজ বন্ধ হয়ে যায়।

এমন অবস্থার মধ্যে তাদের কাজ না থাকায় তারা নদীপথে বুধবার গভীর রাতে ভাঙ্গুড়াতে এসে পৌঁছাবে এমন খবর পায় গ্রামবাসী। বিষয়টি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নিকট জানানো হয়। এরপর রাতে ওই দিনমজুররা গ্রামে পৌঁছালে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বাররা তাদেরকে বাড়িতে যেতে না দিয়ে পুকুরপাড় আইডিয়াাল স্কুলের ভবনে তাকার ব্যবস্থা করে দেন।

বৃহস্পতিবার সকালে ওই দিনমজুরদের স্বজনরা তাদেরকে বাড়িতে নিয়ে যেতে আসে। কিন্তু ইউপি চেয়ারম্যান উপজেলা প্রশাসনের সাতে আলোচনা করলে উপজেলা প্রশাসন তখন ঐ দিনমজুরদের স্কুল ভবনে হোম কোয়ারেটিনে রাখতে নির্দেশ দেন।

জানা গেছে, শুক্রবার উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ঐ দিনমজুরদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবেন।

ঘটনার বিষয়ে খানমরিচ ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুর রহমান বলেন, গ্রামের মানুষদের করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঝুঁকি থেকে মুক্ত রাখতে উপজেলা প্রশাসনের পরামর্শে বহিরাগত দিনমজুরদের আলাদা করে রাখা হয়েছে। শুক্রবার স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শ অনুয়ায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।