ক্ষমা চাইলেন ইউটিউব প্রধান

টুইটারে দেওয়া এক বিবৃতিতে সুজান বলেন, “যাচাইকরণ প্রক্রিয়ায় নতুন কিছু মাত্রা সংযোজনের জন্য অনেকেই মানসিকভাবে আঘাত পেয়েছেন এবং হতাশ হয়েছেন। সেজন্য আমি খুবই দুঃখিত।”

“আমরা যখন এর মানোন্নয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছিলাম তখন বিষয়টি আমাদের দৃষ্টির অগোচরে থেকে গেছে। আমরা আপনাদের উদ্বেগের বিষয়টি নিয়ে কাজ করছি এবং খুব শীঘ্রই আমরা আরও কিছু আপডেট নিয়ে আসব,” যোগ করেন সুজান।

প্রযুক্তি সাইট ভার্জের প্রতিবেদনে বলা হয়,  গতকালই যাচাইকরণ ব্যবস্থায় কিছু পরিবর্তন এনেছে ইউটিউব। এ কারণে বেশ কিছু জনপ্রিয় অ্যাকাউন্টধারীর কাছে তাদের যাচাইকরণ বাতিলের মেইল গেছে। সেখানে অবশ্য উল্লেখ করা হয়েছে যে তারা এর বিরূদ্ধে আপিল করতে পারবেন। আর আপিলের জন্য সময় দেওয়া হয়েছে অক্টোবরের শেষ পর্যন্ত।

নতুন নীতিমালা তৈরি করা হয়েছে মূলত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, ব্র্যান্ড, শিল্পী এবং ইউটিউবের বাইরে যারা বিখ্যাত তাদের পরিচিতিকে নিশ্চিত করার জন্য।

ইউটিউবের এই নীতিমালাকে ফেইসবুক, টুইটার বা ইনস্টাগ্রামের চেয়েও বেশি সজ্জিত করা হয়েছে যাতে গ্রাহক কোনো নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্টকে খুব সহজেই খুঁজে পান।

নতুন নীতিমালার কারণে অ্যাকাউন্টধারীদের অনেকেই হতাশ হবেন এমনটি ইউটিউব কর্তৃপক্ষ আগে থেকে জানলেও বড় অ্যাকাউন্টগুলোর সুরক্ষার জন্যই এটি করা হয়েছে। যারা ভেরিফিকেশন ব্যাজ হারিয়েছেন তাদেরকে নতুন করে আবারও কিছু ধাপ অতিক্রম করতে হবে। ইউটিউবের পক্ষ থেকে জানানো হয়, যারা আপিল করবেন তাদের জন্য থাকবে হাতে কলমে যাচাইকরণ ব্যবস্থা। আর এ সুযোগ থাকবে অক্টোবরের শেষ পর্যন্ত।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন