গ্রেফতার আতঙ্কে মাটিরাঙ্গার স্বজন হারা গ্রামবাসী

মাটিরাঙ্গা (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধিঃ মাটিরাঙ্গা গাজীনগর এলাকায় নিজ বাগানের গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে বিজিবি ও গ্রামবাসী সংঘর্ষে বিজিবি সদস্য মোঃ শাওন খান নিহতের ঘটনায় বিজিবি কর্তৃক নিহত ৪ জন সহ ১৯ জন এবং অজ্ঞাত আরও ৬০/৭০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

৪০ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) এর হাবিলদার মোঃ ইসহাক আলী বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

উক্ত মামলা দায়েরের পর এখন এলাকায় স্বজন হারানোর উপর গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করছে। ঘটনাস্থল গাজীনগর বাজারের দোকান পাট বন্ধ রয়েছে, এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে গ্রেফতার আতঙ্কে ভুগছে সাধারন মানুষ। বিজিবি’র দায়ের করা মামলায় ক্ষোভের পাশাপাশি এলাকায় চলছে শোকের মাতম।

এদিকে গ্রামবাসী বলছে সেদিন বিজিবির হাবিলদার মোঃ ইসহাক আলী কোনো ধরনের উসকানি ছাড়াই আহম্মদ আলী, আকবর আলী, সাহাব মিয়া (মুসা), মফিজ মিয়া সহ নিরপরাধ মানুষকে সামনে থেকে গুলি করে হত্যা করেছে। কিন্তু সত্য ঘটনাকে আড়াল করতেই উল্টো সাধারণ মানুষের নামে মিথ্যা মামলা করেছে।

এ মামলায় ১৯ জনের নাম উল্লেখ করলেও ৬০/৭০ জনকে আসামী করায় গোটা গ্রামের মানুষ জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পরেছে।

মৃত মফিজ মিয়ার স্ত্রী বলেন, স্বামী হারিয়েছি, মেয়ের জামাই হারিয়েছি, ছেলে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন, আমাদেরকে গুলি করে আবার আমাদের নামে মিথ্যা মামলা করেছে। স্বামী স্ত্রী স্বজনদের গুলি করে হত্যার দায়ে বিজিবির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবেন বলে জানান তিনি।

স্থানীয় মোঃ দুলাল মিয়া জানান, ঐ দিনের ঘটনা সম্পর্কে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সত্য বলায় সাধারণ গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে বিজিবি এ মিথ্যা মামলা করেছে। আমরা এখন বাড়ি ঘরে থাকতে পারছি না, ভয়ে আতঙ্কে আমরা সারারাত কাটাতে হয় জংগলে।

এলাকার আইনশৃংখলা পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে প্রশাসন কাজ করছে জানিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিভীষন কান্তি দাস বলেন, সাধারণ মানুষ যেন কোনোভাবেই হয়রানির শিকার না হয় তা নিশ্চিত করা হবে।

ইতিমধ্যে তদন্ত কমিটি ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, আগামী রোববার কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিবে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন