চাটমোহরের পর সুজানগরে করোনা রোগী শনাক্ত

আবু আল সাইদ, সুজানগরঃ পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলায় সর্বপ্রথম দুইজন করোনা রোগী সনাক্ত হবার পর গত-১৯ এপ্রিল সুজানগর উপজেলায় প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে।

আক্রান্ত ব্যক্তি সুজানগর উপজেলার আমিনপুর থানার আহম্মদপুর ইউনিয়নের দূর্গাপুর (ঘোষপাড়া) এলাকার।

সুজানগর হাসপাতালের আরএমও ডাঃ সেলিম মোরশেদ, আহম্মদপুর ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন মিয়া ও স্থানীয় কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত কাজী শরিকুল ইসলাম বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে এঘটনার পর উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশের একটি দল গিয়ে ওই বাড়ী’সহ গ্রামটি লকডাউন ঘোষণা করেছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায় নারায়নগঞ্জের একটি ট্রেক্সটাইল মিলে কর্মরত ঐ ব্যক্তি তার কর্মস্থল থেকে অসুস্থ অবস্থায় গত ৯ এপ্রিল তার নিজ বাড়ী দূর্গাপুর (ঘোষপাড়া) আসে। পরে স্থানীয় এলাকাবাসীর সন্দেহ হলে তারা প্রশাসন, মেডিক্যাল টিম ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় তাকে নিজ বাসায় হোম কোয়ারান্টাইনে থাকতে বলে।

তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গত ১০ এপ্রিল দুলাই বাজারে ডাঃ তুহিনের কাছে চিকিৎসার জন্য গেলে তিনি তাকে করোনার নমুনা পরিক্ষা ও উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ দেন।

এমতাবস্থায় উক্ত রোগী গত ১১ এপ্রিল দুইদিন পরই চিকিৎসার জন্য তার স্ত্রী ও তার বাবাকে সংগে নিয়ে রাতের অন্ধকারে মাইক্রো’যোগে ঢাকাতে গিয়ে কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভর্তি হয়ে তার শরীরে নমুনা পরিক্ষা করলে কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস পজিটিভ ধরা পড়ে।

বর্তমানে সে ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে এ প্রতিনিধিকে রবিবার রাতে মোবাইল ফোনে জানায় করোনায় আক্রান্ত রোগীর পিতা। এ সময় তিনি করোনায় আক্রান্ত তার ছেলের জন্য সকলের নিকট দোয়া কামনা করেন।

এব্যাপারে সুজানগর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ হাবিবুর রহমান মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে জানান, তিনি এখন উক্ত বাড়িতে অবস্থান করছেন এবং ঐ বাড়ি থেকে আরও পাঁচজন কে নমুনা পরিক্ষার জন্য স্যাম্পল সংগ্রহ করে রাজশাহী পাঠাবেন বলে জানান।

এ ব্যাপারে আমিনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রশাসন ঐ বাড়িতে গিয়েছে আমরাও সবসময়ই খোঁজখবর নিচ্ছি এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশ পেলে পুরো এলাকা লকডাউন করা হবে।

বর্তমানে অত্রএলাকার জনসাধারণের মাঝে অদৃশ্য এক করোনা ভাইরাস আতংক বিরাজ করছে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন