টাঙ্গাইলে নিজ গৃহে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

বিশেষ প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে নিজ গৃহে এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার হয়। লিজা আক্তার (২০) উপজেলার ফলদা ইউনিয়নের ঢেপাকান্দি গ্রামের আব্দুল লতিফের মেয়ে। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে পাশের গ্রাম মাদারিয়ার শমসের আলীর ছেলে শাহ আলম (৩১) এর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়।

০৭ মার্চ (মঙ্গলবার) সকাল ১১ টায় তার নিজ শোবার ঘরে তার মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। পরে পুলিশকে ফোন দিলে তারা লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

প্রতিবেশী শামসুল আলম জানান, তাদের স্বামী-স্ত্রীতে মাঝে মধ্যে ঝগড়া হতো। শাহ আলম একপ্রকার বেকার থাকতো বলে এই নিয়ে বিবাহের পর থেকে তাদের মাঝে প্রায়ই ঝগড়া হত। আমরা জানতে পারি হঠাৎ করে সে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু আমরা গিয়ে বিছানায় ওর লাশ দেখতে পাই। তার গায়ের ওড়না তার পায়ের ওপর ছিল। আমরা এসে ওর স্বামীকে খুঁজে পাইনি।

ঢেপাকান্দি গ্রামের কামাল হাসান জানান, শাহ আলম ওইদিন সকালে তার শ্বশুরবাড়ির গ্রামে এক মুদির দোকানে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে অন্য এক ক্রেতার সাথে বাক-বিতন্ডে জড়িয়ে পড়ে। পরে সে ক্ষিপ্ত হয়ে সেখান থেকে চলে গিয়ে তার এলাকার কয়েকজন সহযোগীকে সাথে নিয়ে দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোটাসহ ফিরে আসে। খবর পেয়ে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন বাঁধা দেয় ও তাকে বাড়িতে ফিরে পাঠায়। কিছুক্ষণ পর আমরা জানতে পারি লিজা গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু আমরা গিয়ে শাহ আলমকে কোথাও খুঁজে পাইনি।

ভূঞাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মো: রাশিদুল ইসলাম দৈনিক স্বতঃকন্ঠকে বলেন, দুপুরে ফোন পাওয়া মাত্র ঘটনাস্থলে হাজির হই। সেখানে নিহত লিজা আক্তার কে বিছানায় পড়ে থাকতে অবস্থায় উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি। মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি, তবে পোস্টমর্টেম রিপোর্ট আসার পর বলতে পারব।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শাহিনুল ইসলাম তালুকদার দুদু বলেন, দুপুরে আমি ঘটনাটি জানতে পেরেছি। কিন্তু ঘটনাস্থলে তার স্বামীকে পাওয়া যায়নি। নিহত লিজার বাবা এটি আত্মহত্যা নয়, খুন বলে দাবি জানিয়েছে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন