টাঙ্গাইলে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ অভিযুক্ত আটক

টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের নাগরপুরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে নাগরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।

অভিযোগকারী বিউটির (ছদ্মনাম) সাথে একই গ্রামের প্রবাসী আরিফ হোসেনের ছেলে মোঃ মাসুদ রানার (২১) সাথে তার দীর্ঘ দিনের প্রেমের সর্ম্পক ছিল।

বিউটিদের বাড়ীর সামনে থাকা চা দোকানদার নাদম আসান (৫৫) জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) বিউটির মা তার বড় মেয়ের বাড়ী যাবার সময় আমাকে বলে বাড়ীতে বিউটি রইলো একটু যেন খেয়াল রাখি। আমি রাত ১০টার দিকে দোকান বন্ধ করার সময় খেয়াল করি কে যেন বাড়ীর গেট খুলে কেউ ভিতরে গেল। আমি বাড়ী চলে আসি। পরে আমার মনে হয় বিউটি বাড়ীতে একা তাহলে গেল কে। সন্দেহ হওয়ায় আমি আবার বিউটিদের বাড়ী আসি এবং দেখি গেট বন্ধ কিন্তু ঘরের ভিতর থেকে ফিসফিস কথার আওয়াজ পাওয়া যায়। আমি প্রতিবেশি আক্কাস কে ডেকে আনলে সেও বুঝতে পারে যে ঘরের ভিতরে কেউ আছে। আমরা আরো লোকজন নিয়ে রাত ২টার সময় তাদের কে অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় হাতেনাতে ধরে নাগরপুর থানায় সংবাদ দেই এবং এস আই নুর মোহাম্মদ সকালে ঘটনাস্থলে পৌঁছে ছেলে ও মেয়ে উভয়কে থানা হেফাজতে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে বিউটির মা বলেন, আমার নাতিনের জন্মদিনের অনুষ্ঠানের জন্য বিউটিকে বাড়ীতে একা রেখে আমার বড় মেয়ের শশুর বাড়ী টাঙ্গাইল যাই। বিউটি আমার ছোট মেয়ে, তাই যাবার সময় আশেপাশের সবাইকে বলে যাই যেন লক্ষ্য রাখে। আর এ সুযোগে মাসুদ আমার মেয়ের এমন সর্বনাশ করেছে, আমি এর সুষ্ঠ বিচার দাবি করছি।

এসআই নুর মোহাম্মদ জানান, ধর্ষণের সংবাদ পেয়ে আমি সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সেখানে যাই এবং দুজনকে থানা হেফাজতে নিয়ে আসি। ভুক্তভোগী নিজেই বাদী হয়ে একটি মামলা করেছে। মামলা নং ৮।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাটি রুজু হয়েছে ।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন