টাঙ্গাইলে ভূঞাপুরে এক স্কুল শিক্ষার্থীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ আটক ২

কামরান পারভেজ ইভান, টাঙ্গাইলঃ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে সংঘবদ্ধ হয়ে এক স্কুলশিক্ষার্থীকে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রোববার ১৫ মার্চ রাতে শিক্ষার্থীর বাবা বাদী হয়ে চারজনের নামে ভূঞাপুর থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। উক্ত অভিযোগের ভিত্তিতে দুই ধর্ষণকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

অভিযুক্তরা হলো, উপজেলার পলশিয়া গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে কিশোর রানা বাবু (১৬) ও একই গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে জাকারিয়া (২০)।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ভুক্তভোগী ওই স্কুল শিক্ষার্থীকে উপজেলার পলশিয়া গ্রামের রানা বাবু বিদ্যালয়ে যাতায়াতের সময় উত্যক্ত করা সহ প্রেমের প্রস্তাব দিত। প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে রানা বাবু ক্ষিপ্ত হয়ে গত সোমবার ৯ মার্চ রাতে মেয়েটির বাড়ির পাশে ওঁৎ পেতে থাকে। পরে প্রকৃতির ডাকে ঘর থেকে বের হলে রানা বাবু ও তার সহযোগীরা তাকে জোরপূর্বকভাবে তুলে নিয়ে যায়।

পরে সেখানে রানা বাবু ও তার সহযোগী জীবনের সহযোগিতায় উপজেলার ৪নং পুর্নবাসন গ্রামের বাদশার ছেলে সুজন ও পলশিয়া গ্রামের খালেকের ছেলে জাকারিয়া মেয়েটির শ্লীলতাহানী করে এবং বিষয়টি কাউকে জানালে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। ভুক্তভোগী মেয়েটি পরে বিষয়টি তার পরিবারের কাছে জানায় ।

ভূঞাপুর থানার ওসি রাশিদুল ইসলাম জানান, সোমবার ৯ মার্চ রাতে ৪জন সংঘবদ্ধ হয়ে ওই শিক্ষার্থীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। পরে পাশের গ্রাম সিরাজকান্দিতে নিয়ে গিয়ে জাকারিয়া ও সুজন তার শ্লীলতাহানী করে। আটক রানা বাবু ও জাকারিয়া প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে অপরাধের কথা স্বীকার করেছে।

মেয়েটি শারীরিকভাবে অনেক দুর্বল হয়ে পড়েছে। তাই ডাক্তারী পরীক্ষা ও চিকিৎসার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আটককৃত দুইজনকে ১৬ মার্চ (সোমবার) দুপুরে টাঙ্গাইল কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন