ট্রাম্পের সফরকালে দিল্লির সংঘর্ষে একজন নিহত কয়েক ডজন আহত

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সোমবার নয়াদিল্লিতে সংঘর্ষের মধ্যে এক পুলিশ সদস্য নিহত এবং কয়েক ডজন মানুষ আহত হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফরের পূর্বে কয়েক ঘন্টা ধরে নতুন নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ করেছে।

পুলিশ বিক্ষোভরত জনতাকে বিচ্ছিন্ন করে দিতে টিয়ার গ্যাস ও ধোঁয়া গ্রেনেড ব্যবহার করেছিল। এর বিপরিতে জনতাও পাথর নিক্ষেপ করে। ফলে সেখানে যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হয়। যেখানে আজ মঙ্গলবার ট্রাম্প ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাথে আলোচনার জন্য সাক্ষাৎ করবেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেছেন, একজন পুলিশ কনস্টেবল নিহত হয়েছেন।

দিল্লির জিটিবি হাসপাতালের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, সংঘর্ষে আহত ৩৫ জনেরও বেশি লোকের চিকিৎসা চলছে। এএনআই জানিয়েছে যে, একজন বেসামরিক নাগরিকও মারা গেছেন, তবে এটি নিশ্চিত নয়।

সাংবাদিকরা দেখেছেন যে, একাধিক যানবাহনে আগুন লাগানো, ধাতব ব্যারিকেড ভাঙা, ঘন ধোঁয়া বের হচ্ছে এবং নতুন আইনের সমর্থকরা বিরোধীদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত। সেসময় পুলিশের একটি ছোট্ট দল সেখানে উপস্থিত ছিল যা সংঘর্ষকাদের তুলনায় অপ্রতুল।

ভারতের রাজধানী এই আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছে, যা ভারতীয় নাগরিকত্ব অর্জনের জন্য তিন প্রতিবেশী মুসলিম অধ্যুষিত দেশ থেকে অমুসলিমদের পথকে সহজ করে দেয়।

এর ফলে মোদী এবং তাঁর হিন্দু জাতীয়তাবাদী ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ ঐতিহ্যকে ক্ষুন্ন করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বিজেপি ভারতের ১৮০ মিলিয়নেরও বেশি শক্তিশালী মুসলিম সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে কোনও পক্ষপাতিত্ব অস্বীকার করেছে, তবে আপত্তি্কারীরা দু’মাস ধরে নয়াদিল্লির কিছু অংশে বিক্ষোভ করে চলেছে।

ডিসেম্বরের শুরুতে নাগরিকত্ব সংশোধন আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু হওয়ার পর থেকে নয়াদিল্লিতে সোমবারের সংঘর্ষ সবচেয়ে ভয়াবহরূপে দেখা গেছে।

সর্বশেষ সহিংসতার ঘটনাটি ঘটেছিল যখন ট্রাম্প আমেরিকার রাষ্ট্রপতি হিসাবে প্রথম ভারত সফর শুরু করেছিলেন, মোদির রাজ্য গুজরাটে এক সমাবেশে ভাষণ দিচ্ছিলেন।

ট্রাম্প সোমবার গভীর রাতে নয়াদিল্লিতে অবতরণ করেছেন।

সূত্রঃ রয়টারস।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন