তাড়াশে শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন

মহসীন আলী, তাড়াশঃ সিরাজগঞ্জের তাড়াশে উপজেলার মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম (মউশিক) প্রকল্পের শিক্ষকরা বিগত তিন মাস যাবৎ বেতন ভাতা না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা যায়, বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের অধীনে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরিচালনায় প্রকল্পটি চলে আসছে। সরকারের প্রকল্প সূমুহের মধ্যে এটি একটি সফল প্রকল্প যার সফলতা শতভাগ।

সূত্র আরো জানায়, মূলত ইসলামের প্রচার ও প্রসারের জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ২২মার্চ এক অধ্যাদেশ বলে ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেন। এবং মসজিদের ইমামদের সামাজিক ভাবে প্রতিষ্ঠা করার লক্ষে ও কচিকাচা শিশুদের ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত করার জন্য ১৯৯২ সাল থেকে মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণ শিক্ষা প্রকল্প সুনামের সাথে পরিচালিত হয়ে আসছে। একার্যক্রমে প্রাক-প্রাথমিক, সহজ কুরআন শিক্ষা ও বয়স্ক স্থরে শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে। এর সাথে জড়িত মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিনগন সরকারের সকল প্রকার উন্নয়ন মূলক যেমন, যৌতুক, বাল্য বিবাহের কুফল, মাদক, সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ, টীকাদান কর্মসূচীসহ সকল প্রকার সচেনতামূলক কাজ করে যাচ্ছেন। বিশেষ করে বর্তমান মহামারি করোনা ভাইরাস বিষয়ক সরকারের নির্দেশনা নিরলস ভাবে বাস্তবায়ন করছেন এশিক্ষার কার্যক্রমের সথে জড়িত মসজিদের ইমাম ও মুয়াজ্জিনগন।

অথচ তারা বিগত তিন মাস(জানুয়ারী, ফেব্রয়ারী ও মার্চ মাস) বেতন ভাতা পাচ্ছেনা। এবং সরকারের পক্ষ থেকে কোন প্রকার সাহায্যও পাননি। ফলে তারা পরিবার পরিজন নিয়ে চরম বিপাকে দিনাতিপাত করছেন।

মাওলানা সাইফুল ইসলাম, রবিউল করিম, রেজাউল করিম, শাহাদৎ হোসেন, আব্দুল ওয়াহাব, শাহিনুর রহমান ও কামাল হোসেনসহ একাধিক শিক্ষক বলেন, তিন মাস হল বেতন পাইনা সরকারের, কোন সাহায্যও পাইনা এই মহামারির সময় আমরা পরিবার নিয়ে চলব কেমন করে। আমরা সাহায্য চাইনা আমাদের বেতন ভাতা দ্রত দেওয়া হোক।

তারা আরো বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিষ্ঠিত পতিষ্ঠানে চাকুরী করি অথচ মুজিব বর্ষে এসে বেতন ভাতা বন্ধ জাতির জন্য এটা লজ্জাকর।

এবিষয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন সিরাজগঞ্জের সহকারি পরিচালক মো: মিরাজুল ইসলাম বলেন, ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর ৬ষ্ঠ পর্যায় প্রকল্পের মেয়াদ শেষ। সপ্তম পর্যায়ের অনুমোধন পক্রিয়া চলমান প্রকল্প অনুমোধন হলেই বকেয়া বেতন দেওয়া হবে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন