নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ৩জনের ৭দিন করে কারাদণ্ড

ভূঞাপুর: অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের দায়ে ৩জনকে কারাদণ্ড।


টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৬:১১ অপরাহ্ন, ১ জুলাই ২০২২

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ৩ জনকে ৭ দিন করে কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শুক্রবার (১জুলাই) সকালে ভূঞাপুর নৌ পুলিশ ফাঁড়ির অভিযানে ৩জনকে আটক করে এ দণ্ডাদেশ দেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ আলাউল ইসলাম।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- অত্র উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের গোবিন্দাসী গ্রামের খলিলুর রহমান(খোকা) ছেলে আরিফুল ইসলাম বাবু(৩৪), গাবসারা ইউনিয়নের ডোবাইয়ার চর গ্রামের মৃত পরবত আলী শেখের ছেলে আশরাফ আলী(৪২)ও আজিজুল(২৬)।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রতিদিনই যমুনার পানি অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে ক্রমেই বন্যা পরিস্থিতি অবনতির দিকে যাচ্ছে। পানির বৃদ্ধির সাথে সাথে যমুনার বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব পাড়ে উপজেলার গোবিন্দাসী, জিগাতলা, ভালকুটিয়া, চিতুলিয়াপাড়া গ্রামের অনেকাংশে দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙন। একদিকে প্রতিদিনই হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে।

অপরদিকে থেমে নেই এই অবৈধ বালু উত্তোলন। এতে করে যমুনার নদী ভাঙ্গনে উপজেলার গোবিন্দাসী, গাবসারা, অর্জুনা ও নিকরাইলের ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রাম বিলীন হয়ে যাচ্ছে। অথচ ভাঙ্গন কবলিত এলাকা থেকে ড্রেজার ও নৌকা দিয়ে একটি চক্র অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছিল। স্থানীয়দের অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যমুনা নদীর কালা সড়কের কাছ থেকে অভিযানে তাদেরকে আটক করে ভূঞাপুর নৌ পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা।

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শেখ আলাউল ইসলাম বলেন, আজকে সকাল সোয়া ১০ টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি গোবিন্দাসী নৌ ফেরিঘাট সংলগ্ন বেড়িবাঁধ (কালা সড়ক) এলাকায় ড্রেজার দিয়ে কিছু দুষ্কৃতিকারীরা বালু উত্তোলন করছে। এ সময় ভূঞাপুর নৌ পুলিশ ফাঁড়ি ও ভূঞাপুর থানা পুলিশের সহযোগিতায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অবস্থায় ৩ জনকে আটক এবং বালু উত্তোলনে ব্যবহৃত বলগেট জব্দ করা হয়। এরপর বালু মহল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০-এর আওতায় তাদের তিন জনকে ৭ দিন করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। ভূঞাপুরে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের দায়ে ৩জনকে কারাদণ্ড।

 


 আরও পড়ুনঃ

 আরও পড়ুনঃ


একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন