ঢাকা ০৭:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com

পাবনার চাটমোহরে স্বেচ্ছায় গ্রামবাসীর লকডাউন

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত সময় ০৪:১১:৩৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ এপ্রিল ২০২০
  • / 4

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ও সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে পাবনার চাটমোহর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় স্বেচ্ছায় লকডাউন করেছেন স্থানীয় এলাকার গ্রাম বাসীরা।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে পাবনার চাটমোহর উপজেলায় বিভিন্ন গ্রামের পাড়া এলাকার প্রবেশ মুখে সড়কে বাঁশ দিয়ে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

আজ (১১এপ্রিল শনিবার) সকালে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, আফ্রাতপাড়া ও নারিকেল পাড়া গ্রামের এমন চিত্র। গ্রামে প্রবেশে পথের মূল সড়কে বাঁশ দিয়ে গ্রামের রাস্তায় যাতায়াতের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছে এবং বাঁশ লম্বা করে টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়েছে।

গ্রামের কিছু সচেতন ব্যাক্তির সঙ্গে কথা বললে তারা জানায়, এই লকডাউন এর উদ্দেশ্য গ্রামে নতুন কোন অপরিচিত ব্যাক্তির আগমন রোধ করার পাশাপাশি যানবাহনের চলাচল বন্ধ করা এবং অপ্রয়োজনে জনসাধারণের ঘুরাফেরা বন্ধ করা।

জানতে চাইলে গ্রামের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক জন বয়স্ক ব্যাক্তি জানান, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এতে গ্রামের মানুষের অবাধ চলাচল বন্ধ হবে। এছাড়াও বাহিরের বিভিন্ন জেলা শহর এলাকা থেকে আসা ব্যাক্তি ও যান বাহন চলাচল বন্ধ হবে। নিজেরা সচেতন হলেই নভেল করোনা নামক ভাইরাস সংক্রমণ রোধ করা সম্ভব হবে বলে মনে করেন এলাকার সাধারন মানুষ।

চাটমোহর পৌরসভার নারিকেল পাড়া, আফ্রাতপাড়া বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন আরাজি উথুলি খামার পাড়া মহল্লা বাসী স্বেচ্ছায় লকডাউন ঘোষনা করেছেন। তারা মহল্লায় প্রবেশের প্রধান রাস্তা বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড তৈরি করে দিয়েছেন। তবে এই লকডাউন নিয়ে নানাজনের প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। লকডাউনের কারণে জরুরী রুগীবাহী এ্যাম্বুলেন্স কিংবা অন্যান্য খাদ্য বহনকারী গাড়ি চলাছল করতে পারছেনা। এদিকে আফ্রাতপাড়ার খামারপাড়া বিল এলাকায় মাদকসেবীদের আড্ডা বেড়েছে। প্রশাসনের পদক্ষেপ দাবি করেছেন মহল্লাবাসী।

এদিকে উপজেলার আফ্রাতপাড়া, নারিকেল পাড়া, স্টার মোড়, শাপলা ক্লাব মোড়, ব্রাইট স্টার কেজি স্কুল মোড়ে গ্রামের মানুষ নিজেরাই নিজেদের বাড়ির মোড় লকডাউন করেছেন। কারণ এসকল গ্রামে অনেকেই ঢাকা থেকে বাড়িতে এসেছেন। অতি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাড়ির বাহিরে বের হচ্ছেন না। উপজেলার ছাইকোলা এলাকায় গুমানী নদীর উপর তৈরি বাঁশের সাঁকো তুলে দেওয়া হয়েছে। যাতে কেউ গ্রামে ঢুকতে না পারে। এরআগে উপজেলার কাটাখালী গ্রামকে লকডাউন ঘোষনা করেছেন প্রশাসন।

পাবনার চাটমোহরে স্বেচ্ছায় গ্রামবাসীর লকডাউন

প্রকাশিত সময় ০৪:১১:৩৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ এপ্রিল ২০২০

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ও সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে পাবনার চাটমোহর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় স্বেচ্ছায় লকডাউন করেছেন স্থানীয় এলাকার গ্রাম বাসীরা।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে পাবনার চাটমোহর উপজেলায় বিভিন্ন গ্রামের পাড়া এলাকার প্রবেশ মুখে সড়কে বাঁশ দিয়ে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

আজ (১১এপ্রিল শনিবার) সকালে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, আফ্রাতপাড়া ও নারিকেল পাড়া গ্রামের এমন চিত্র। গ্রামে প্রবেশে পথের মূল সড়কে বাঁশ দিয়ে গ্রামের রাস্তায় যাতায়াতের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়েছে এবং বাঁশ লম্বা করে টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়েছে।

গ্রামের কিছু সচেতন ব্যাক্তির সঙ্গে কথা বললে তারা জানায়, এই লকডাউন এর উদ্দেশ্য গ্রামে নতুন কোন অপরিচিত ব্যাক্তির আগমন রোধ করার পাশাপাশি যানবাহনের চলাচল বন্ধ করা এবং অপ্রয়োজনে জনসাধারণের ঘুরাফেরা বন্ধ করা।

জানতে চাইলে গ্রামের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েক জন বয়স্ক ব্যাক্তি জানান, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এতে গ্রামের মানুষের অবাধ চলাচল বন্ধ হবে। এছাড়াও বাহিরের বিভিন্ন জেলা শহর এলাকা থেকে আসা ব্যাক্তি ও যান বাহন চলাচল বন্ধ হবে। নিজেরা সচেতন হলেই নভেল করোনা নামক ভাইরাস সংক্রমণ রোধ করা সম্ভব হবে বলে মনে করেন এলাকার সাধারন মানুষ।

চাটমোহর পৌরসভার নারিকেল পাড়া, আফ্রাতপাড়া বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন আরাজি উথুলি খামার পাড়া মহল্লা বাসী স্বেচ্ছায় লকডাউন ঘোষনা করেছেন। তারা মহল্লায় প্রবেশের প্রধান রাস্তা বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড তৈরি করে দিয়েছেন। তবে এই লকডাউন নিয়ে নানাজনের প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। লকডাউনের কারণে জরুরী রুগীবাহী এ্যাম্বুলেন্স কিংবা অন্যান্য খাদ্য বহনকারী গাড়ি চলাছল করতে পারছেনা। এদিকে আফ্রাতপাড়ার খামারপাড়া বিল এলাকায় মাদকসেবীদের আড্ডা বেড়েছে। প্রশাসনের পদক্ষেপ দাবি করেছেন মহল্লাবাসী।

এদিকে উপজেলার আফ্রাতপাড়া, নারিকেল পাড়া, স্টার মোড়, শাপলা ক্লাব মোড়, ব্রাইট স্টার কেজি স্কুল মোড়ে গ্রামের মানুষ নিজেরাই নিজেদের বাড়ির মোড় লকডাউন করেছেন। কারণ এসকল গ্রামে অনেকেই ঢাকা থেকে বাড়িতে এসেছেন। অতি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাড়ির বাহিরে বের হচ্ছেন না। উপজেলার ছাইকোলা এলাকায় গুমানী নদীর উপর তৈরি বাঁশের সাঁকো তুলে দেওয়া হয়েছে। যাতে কেউ গ্রামে ঢুকতে না পারে। এরআগে উপজেলার কাটাখালী গ্রামকে লকডাউন ঘোষনা করেছেন প্রশাসন।