ঢাকা ০৬:৫৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com

পুঠিয়ায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত সময় ০৯:৩৭:০৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ এপ্রিল ২০২০
  • / 9

rape

পুঠিয়া (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ পুঠিয়ায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তারই মামাতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে।

ধষর্ণের অভিযুক্ত আশিক (২০) উপজেলার ভালুকগাছী ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামের ইদ্রিস মন্ডলের ছেলে।

এছাড়াও এঘটনার সহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে জনি (১৯) এর বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত জনি আশিকের চাচাতো ভাই এবং একই গ্রামের জামাল মন্ডলের ছেলে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৬ এপ্রিল রাতে ঐ এলাকার একটি আমবাগানে।

মামলা সুত্রে জানাগেছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে একই গ্রামের নবম শ্রেণীর ছাত্রীকে মোবাইলে কৌশলে ডেকে একটি আমবাগানে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে তারই মামাতো ভাই আশিক। সেসময় আশিকের সাথে ছিলো তার চাচাতো ভাই জনি।

এসময় ঐ ছাত্রীর বাবা মা তাকে তার ঘরে দেখতে না পেয়ে খোঁজাখোঁজি শুরু করে। পরে পার্শ্ববর্তী একটি আমবাগানে মেয়েকে অচেতন অবস্থায় পরে থাকতে দেখে। মেয়েকে উদ্ধার করে তারা বাড়িতে নিয়ে আসে। সেসময় আশিক ও জনি পালিয়ে যায়।

পরে মেয়ের মুখে ধর্ষণে বিষয়টি জানতে পেরে তার বাবা গত শুক্রবার পুঠিয়া থানায় ধর্ষণের মামলা দায়ের করে।

এ বিষয়ে পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল ইসলাম ধর্ষণে মামলার বিষয়ে নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামীরা পরস্পর চাচাতো ভাই এবং ভিকটিম মামাতো বোন। আসামীরা পালাতক রয়েছে। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে।

পুঠিয়ায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

প্রকাশিত সময় ০৯:৩৭:০৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ এপ্রিল ২০২০

পুঠিয়া (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ পুঠিয়ায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তারই মামাতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে।

ধষর্ণের অভিযুক্ত আশিক (২০) উপজেলার ভালুকগাছী ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামের ইদ্রিস মন্ডলের ছেলে।

এছাড়াও এঘটনার সহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে জনি (১৯) এর বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত জনি আশিকের চাচাতো ভাই এবং একই গ্রামের জামাল মন্ডলের ছেলে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৬ এপ্রিল রাতে ঐ এলাকার একটি আমবাগানে।

মামলা সুত্রে জানাগেছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে একই গ্রামের নবম শ্রেণীর ছাত্রীকে মোবাইলে কৌশলে ডেকে একটি আমবাগানে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে তারই মামাতো ভাই আশিক। সেসময় আশিকের সাথে ছিলো তার চাচাতো ভাই জনি।

এসময় ঐ ছাত্রীর বাবা মা তাকে তার ঘরে দেখতে না পেয়ে খোঁজাখোঁজি শুরু করে। পরে পার্শ্ববর্তী একটি আমবাগানে মেয়েকে অচেতন অবস্থায় পরে থাকতে দেখে। মেয়েকে উদ্ধার করে তারা বাড়িতে নিয়ে আসে। সেসময় আশিক ও জনি পালিয়ে যায়।

পরে মেয়ের মুখে ধর্ষণে বিষয়টি জানতে পেরে তার বাবা গত শুক্রবার পুঠিয়া থানায় ধর্ষণের মামলা দায়ের করে।

এ বিষয়ে পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল ইসলাম ধর্ষণে মামলার বিষয়ে নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামীরা পরস্পর চাচাতো ভাই এবং ভিকটিম মামাতো বোন। আসামীরা পালাতক রয়েছে। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে।