ঢাকা ০৪:২৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৪ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com

বড়াইগ্রামে আনন্দ উল্লাসে বড়দিন পালিত

নাটোর প্রতিনিধি:
  • প্রকাশিত সময় ০৪:২১:৪২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২২
  • / 88

বড়াইগ্রাম বড়দিনের উৎসবে যেমন ছিল।


নাটোরের বড়াইগ্রামের ৬টি খ্রিস্টান ধর্মপল্লীতে আনন্দ উল্লাসে খ্রিস্ট সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব বড়দিন পালিত হয়েছে।

রবিবার সকাল ৭টা ও ৯টায় উপজেলার সবচাইতে বড় ধর্মপল্লী বনপাড়ার লুর্দের রানী মারীয়া ক্যাথলিক গির্জায় বড়দিনের বিশেষ প্রার্থনা (খ্রিস্টযোগ) অনুষ্ঠিত হয়।

ধর্মপল্লীর প্রধান পাল পুরোহিত ফাদার দিলীপ এস কস্তা এ খ্রিস্টযাগ পরিচালনা করেন।

বড়দিন উপলক্ষে উপজেলার গির্জাগুলো সাজানো হয়েছে বর্ণিল রুপে ।  আল্পনা করা হয়েছে ধর্মপল্লীর সড়কগুলো। এছাড়া আল্পনা করা হয়েছে ধর্মপল্লীর বিভিন্ন বাড়ির দেয়াল ও আঙ্গিনা। ধর্মপল্লীর বিভিন্ন বাড়িতে ছোট বড় আকারের তারা তৈরি করে তাতে আলো দিয়ে যীশুখ্রিস্টের আগমনকে তুলে ধরা হয়েছে।  সাজানো হয়েছে প্রতিকৃতি গোশালা, যেখানে যীশুখ্রিস্ট জন্ম লাভ করেছিলেন।  বড়দিন উপলক্ষে বিভিন্ন গির্জা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়েছে কীর্তন প্রতিযোগিতা। বাড়ি বাড়ি চলেছে পিঠা উৎসব সহ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। 

জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী, বনপাড়া পৌর মেয়র কেএম জাকির হোসেন, থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সিদ্দিক বড়দিন উপলক্ষে বিভিন্ন  ধর্মপল্লী ও গির্জা পরিদর্শন করেছেন। 

এই রকম আরও টপিক

বড়াইগ্রামে আনন্দ উল্লাসে বড়দিন পালিত

প্রকাশিত সময় ০৪:২১:৪২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২২

নাটোরের বড়াইগ্রামের ৬টি খ্রিস্টান ধর্মপল্লীতে আনন্দ উল্লাসে খ্রিস্ট সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব বড়দিন পালিত হয়েছে।

রবিবার সকাল ৭টা ও ৯টায় উপজেলার সবচাইতে বড় ধর্মপল্লী বনপাড়ার লুর্দের রানী মারীয়া ক্যাথলিক গির্জায় বড়দিনের বিশেষ প্রার্থনা (খ্রিস্টযোগ) অনুষ্ঠিত হয়।

ধর্মপল্লীর প্রধান পাল পুরোহিত ফাদার দিলীপ এস কস্তা এ খ্রিস্টযাগ পরিচালনা করেন।

বড়দিন উপলক্ষে উপজেলার গির্জাগুলো সাজানো হয়েছে বর্ণিল রুপে ।  আল্পনা করা হয়েছে ধর্মপল্লীর সড়কগুলো। এছাড়া আল্পনা করা হয়েছে ধর্মপল্লীর বিভিন্ন বাড়ির দেয়াল ও আঙ্গিনা। ধর্মপল্লীর বিভিন্ন বাড়িতে ছোট বড় আকারের তারা তৈরি করে তাতে আলো দিয়ে যীশুখ্রিস্টের আগমনকে তুলে ধরা হয়েছে।  সাজানো হয়েছে প্রতিকৃতি গোশালা, যেখানে যীশুখ্রিস্ট জন্ম লাভ করেছিলেন।  বড়দিন উপলক্ষে বিভিন্ন গির্জা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়েছে কীর্তন প্রতিযোগিতা। বাড়ি বাড়ি চলেছে পিঠা উৎসব সহ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। 

জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী, বনপাড়া পৌর মেয়র কেএম জাকির হোসেন, থানার অফিসার ইনচার্জ আবু সিদ্দিক বড়দিন উপলক্ষে বিভিন্ন  ধর্মপল্লী ও গির্জা পরিদর্শন করেছেন।