ভাঙ্গুড়ায় ৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত পল্লি বিদ্যুতের উপকেন্দ্রটি উদ্ভোধনের অপেক্ষায়

স্টাফ রিপোর্টারঃ পাবনা পল্লি বিদ্যুত সমিতি-১ চাটমোহর-এর আওতায় ভাঙ্গুড়ায় ৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ১৩২/৩৩ কেভি গ্রীডের সাব-স্টেশনটি উদ্ভোধনের অপেক্ষায়।

সাব-স্টেশনটিতে দ্বিতল বিশিষ্ট প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। দু’টো ট্রান্সফরমার বসানোর কাজ শেষ পর্যায়। যার প্রত্যেকটি ৫০/৭৫ এমভি (মেঘাভোল্ট অ্যাম্পিয়ার) ক্ষমতা সম্পন্ন। এ উপকেন্দ্রে পাওয়ার গ্রীড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) এর ১৩২ কেভি এবং পল্লি বিদ্যুতের ৩৩ কেভি ক্ষমতা সম্পন্ন দুটো সাপ্লাই স্টেশন রয়েছে।

উপকেন্দ্রটির লাইন নির্মাণ ও সংযোগের কাজ সম্পন্নের পর আগামী মার্চ নাগাদ চালু হবে বলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এনার্জি প্যাক ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মাধব চন্দ্র কুন্ড জানান।

প্রকল্প সমন্বয়কারী মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, জার্মানের এফডব্লিউ’র অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তাবায়নে প্রায় ৬০ কোটি টাকা ব্যয় হচ্ছে।

পল্লি বিদ্যুতের ভাঙ্গুড়া অফিসের সহকারী মহা- ব্যবস্থাপক মোঃ মনির হোসেন বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ফলে বাঘাবাড়ি পাওয়ার স্টেশন থেকে এই গ্রীডে অতিরিক্ত ১৩২/৩৩ কেভি বিদ্যুত সঞ্চালন যুক্ত হবে। তিনি আরো বলেন, পাবনা পল্লি বিদ্যুত সমিতি-১ এর আওতায় সকল গ্রাহক সম্প্রতি শতভাগ সংযোগ লাভ করেছে। এই গ্রীড সংযুক্ত হলে এলাকায় লোড শেডিং এবং লো-ভোল্টেজ থাকবে না।

পাবনা-৩ (ভাঙ্গুড়া, চাটমোহর, ফরিদপুর) এলাকার মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ মোঃ মকবুল হোসেন বলেন, এটা কৃষিভিত্তিক এলাকা হলেও এখানে শিল্পঅঞ্চল গড়ে তোলার উজ্জল সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া গ্রাহকরা এখন নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ উপভোগ করতে পারবেন। এ জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সরকার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভাঙ্গুড়ায় উপকেন্দ্রটি স্থাপনের উদ্যোগ নেন।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন