ম্যানকাইন্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পেইন

আতাইকুলা (পাবনা) প্রতিনিধিঃ আতাইকুলা মাধপুর আমেনা খাতুন ডিগ্রী কলেজ মাঠে ম্যানকাইন্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পেইনের আয়োজন করা হয়।

ক্যাম্পইনে চেক-আপ ব্লাড গ্রুপ, ব্লাড প্রেসার, ডায়াবেটিস, ফ্রি তে করে দেওয়া হয়। উক্ত ক্যাম্পইেন উদ্বোধন করে আতাইকুলা মাধপুর আমেনা খাতুন ডিগ্রী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শাজাহান আলী ও ম্যানকাইন্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের সভাপতি মোঃ মিঠুন শেখ মিঠু।

উক্ত ক্যাম্পইেনে ডাক্তার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হোমিওপ্যাথি চিকিৎসক ডাঃ আশরাফুল আলম, পাবনা হোমিওপ্যাথি মেডিকেল কলেজের ২য় বর্ষের ছাত্র মোঃ হারুন অর রশীদ পাবনা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ছাত্ররা।

উক্ত ক্যাম্পইনে প্রায় শতাধিক অসুস্থ ব্যাক্তিকে প্রাথমিক চিকিৎসা এবং তিন শতাধিক ব্যাক্তিবর্গের ব্লাড গ্রুপিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হয় এর মাঝে বিভিন্ন স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং আতাইকুলা কলেজের সকল শিক্ষার্থীর ব্লাড গ্রুপিং টেষ্ট করা হয়।

সার্বিক সহযোগিতা ছিলেন উৎসর্গ ফাউন্ডেশ। উক্ত ক্যাম্পইনে উপস্থিত ছিলেন ম্যানকাইন্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফ মূর্ধা,সাংগঠনিক সম্পাদক আলামিন বিশ্বাস সাগর, দপ্তর সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম আকাশ, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মোছাঃ পপি খাতুন, উৎসর্গ ফাউন্ডেশন পাবনা জেলা শাখার সভাপতি এ,এস নোমান হোসেন সহসভাপতি নাবিল মাহমুদ মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ইরিন খাতুন।

মেডিকেল ক্যাম্পেইন পরিদর্শন করে অত্র এলাকার চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মিরাজুল বিশ্বাস ও আতাইকুলা উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি মরহুম আলহাজ্ব আব্দুল হাই শেখের ছেলে মোঃ লিটন মাহমুদ।

ম্যানকাইন্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের সভাপতি আমাদের জানিয়েছেন এই সংগঠনটি ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠা হয়। প্রতিষ্ঠা পর থেকেই তার অনেক কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।তাদের বিগত কিছু কর্মসূচিসমূহঃ

প্রত্যেক ইদে অসহায় ও অভাবগ্রস্থ পরিবার এবং প্রতিবন্ধীদের মঝে বস্ত্র ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ করা হয়েছে। বাসস্থানহীন পরিবারকে ঘর করে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন স্কুলে কুইজ প্রতিযোগিতা কর্মসূচি পালন করা হয়। রক্তদান কর্মসূচি পালন করা হয়। এলাকার সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের খোঁজ খবর নেওয়া। মেডিকেল ও স্বাস্থ্য ক্যাম্প করা হয়। বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি করা হয়। ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

সাধারণ মানুষের বিশেষ করে যুবক-যুবতিদের মাঝে বিভিন্ন রকমের সচেতনতামূলক কর্মসূচির আয়োজন করা হয় (যেমন, অশিক্ষা ও মাদক ও ইন্টারনেটের ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরা) ইত্যাদি।

ফাউন্ডেশনের লক্ষ্য ও উদ্যেশ্যঃ

  • এলাকাকে দারিদ্র ও মাদকমুক্ত করা।
  • ধুমপা, মাদক ও দুর্নীতি মুক্ত সমাজ গঠনে জনগণকে সচেতন করে গড়ে তোলা।
  • এলাকার পরিবেশ সুন্দর রাখা।
  • সকল শিশুর শিক্ষা নিশ্চিত করা।
  • প্রতিবন্ধীদের সঠিক বিকাশ নিশ্চিত করা।
  • যৌতুক, বাল্যবিবাহ, নারী নির্যাতন, শিশু শ্রম ও শিশু নির্যাতন সহ সকল সমস্যা নিরসনে স্হানীয় সরকার প্রতিনিধিদের সাথে যোগাযোগ রাখা।
  • সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ মুক্ত সমাজ গঠনে তরুণতরুণীদের উৎসাহিত করা এবং
  • আর্ত মানবতার সেবায় সার্বিক নিয়জিত থাকা ইত্যাদি।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন