রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৮ জন চিকিৎসক নার্সের নমুনা সংগ্রহ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বুধবার ২২ এপ্রিল রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ১৮ জন চিকিৎসক ও নার্সের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, ‘হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডে সাধারণ রোগী হিসেবে ভর্তি হওয়ার চারদিন পর এক ব্যক্তির করোনা শনাক্ত হওয়ায় আমরা বিপাকে পড়েছি। তার সংস্পর্শে গিয়েছিলেন এমন সবাইকে চিহ্নিত করে করোনা পরীক্ষা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।’

তিনি আরও জানান, ‘আমরা হাসপাতালের ৪২ জন চিকিৎসক, নার্স ও ওয়ার্ডবয়কে চিহ্নিত করেছি, যারা করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে গিয়েছিলেন। এর মধ্যে প্রথম ধাপে ১৮ জনের নমুনা ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকিদের নমুনাও পরীক্ষার করা হবে।’ চিহ্নিত ৪২ জন চিকিৎসক, নার্স ও ওয়ার্যবয়কে সঙ্গরোধে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, গত মঙ্গলবার দুপুর থেকে বুধবার দুপুর পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে রামেক হাসপাতালে ১৩ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। তারা জ্বর-সর্দি ও শ্বাসকষ্টে ভুগছেন। এর মধ্যে ৭ জনকে রাজশাহী মিশন হাসপাতালে, ৩ জনকে সংক্রমণ ব্যাধি হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। আর অপর তিনজনকে রামেক হাসপাতালে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

রামেক হাসপাতালের করোনা নির্নয় ও চিকিৎসা টিমের প্রধান ডা. আজিজুলআজাদ খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ‘যাদের শুধৃু সর্দি -জ্বর তাদেরকে মিশন হাসপাতালে আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে। আর যাদের জ্বর-সর্দির সাথে শ্বাসকষ্টও রয়েছে, তাদেরকে সংক্রমণ ব্যাধি হাসপাতালে পাঠানো হয়।’

ডা. আজাদ আরো বলেন, ‘রাজশাহীতে করোনা আক্রান্ত ৮ জন রোগী এখনও সুস্থ রয়েছে। ৭ জন বাড়িতে থেকে এবং একজনকে সংক্রমণ ব্যাধি হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা চলছে। সংক্রমণ ব্যাধি হাসপাতালে থাকা করোনা রোগীর স্ত্রী ও ছেলের নমৃনাও সংগ্রহ করা হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় তাদের নমুনা পরীক্ষার রেজাল্ট পাওয়া যাবে।’
গত ১২ এপ্রিল রাজশাহীতে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়। গতকাল বুধবার পর্যন্ত জেলার চারটি উপজেলায় ৮ জন আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়। এর মধ্যে পুঠিয়া উপজেলায় ৫ জন, বাগমারা, বাঘা, মোহনপুরে একজন করে রোগী শনাক্ত করা হয়।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন