ঢাকা ০৯:০৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com

শারিতা মিল্লাতের উদ্যোগে শাহজাদপুরের ফাতেমার সফল অপারেশন হলো ঢাকার সিএমএইচে

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত সময় ১১:২১:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ মার্চ ২০২০
  • / 9

আমিনুল ইসলাম, সিরাজগঞ্জঃ সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া গ্রামের আব্দুর রহমানের মেয়ে ফাতেমা। আট বছরের ফাতেমা স্থানীয় দাখিল মাদ্রায় ক্লাশ থ্রিতে পড়াশোনা করে।

নিজ বাড়ীর উঠানে সমবসয়ীদের সাথে খেলতে গিয়ে মাথায় তালা দিয়ে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়। চিকিৎসার জন্য তাকে নিয়ে যাওয়া হয় পোতাজিয়া হাসপাতালে। পোতাজিয়া হাসপাতালে ৭/৮ দিন চিকিৎসা নেয়ার পর কোন উন্নতির লক্ষন দেখা যায় না। অভিভাবকরা তাকে নিয়ে আসে সিরাজগঞ্জ সদরে।

গত ১২ জানুয়ারী তাকে ভর্তি করে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতালে। সেখানে তেমন কোন উন্নতি হয় না ফাতেমার। বলা যায় কিশোরী ফাতেমা ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে চলে যাচ্ছিল।

কিন্ত ফাতেমার মাথায় আঘাতের কোনই উন্নতি না দেখে হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়ে গরীব পিতা।

অবশেষে লোকে মুখে শুনতে পায় সিরাজগঞ্জ সদর আসনের সাংসদ এবং তার স্ত্রী শারিতা মিল্লাতের উদ্যোগে আগুনে পোড়া, এসিড নিক্ষেপ ও বিকলাঙ্গদের চিকিৎসার জন্য বিদেশ থেকে ডাক্তার এনে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা এবং অপারেশনের আয়োজন করা হয়েছে।

খবরটা শুনে আশান্বিত হয়ে ওঠে পিতা আব্দুর রহমান। খোঁজ নিতে থাকেন। অবশেষে খোঁজ পেলেন ১৪ মার্চ বিদেশী ডাক্তার আসবেন। খোঁজ নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন সুদিনের। মনের ভিতর নানা চিন্তাও ঘুরপাকা খাচ্ছিল। আমার মতো গরীব মানুষের সন্তানের চিকিৎসা কি বিদেশী ডাক্তার সাহেবদের দিয়ে করানো সম্ভব? না জানি না কতো মানুষের ভীড় হবে! টাকা পয়সা লাগবে কি না? লাগলে সেই টাকা কোথায় থেকে জোগাড় করবেন। সদর হাসপাতালে মেয়ের বেডের পাশে শুয়ে শুয়ে ভাবছিলেন পিতা আব্দুর রহমান।

১৪ মার্চ ডাক্তার আসলেন। সাথে এমপি সাহেব এবং তার স্ত্রী শারিতা মিল্লাত। ডাক্তার সাহেবরা ফাতেমাকে দেখলেন। দেখে ডাক্তার বললেন ফাতেমার মাথার আঘাত মারাত্মক। তার চিকিৎসা সিরাজগঞ্জে সম্ভব নয়। সিদ্ধান্ত জানালেন ফাতেমাকে তারা ঢাকায় নিয়ে যাবেন। ভর্তি করাবেন সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে। সেখানেই তার অপারেশন করাবেন। ফাতেমা ফিরে পাবে তার স্বাভাবিকতা।

অবশেষে গতকাল সিরাজগঞ্জ সদরের সাংসদ ডা: হাবিবে মিল্লাত মুন্না’র সহধর্মিনী উইমেন্স চেম্বার এন্ড কমার্সের প্রেসিডেন্ট শারিতা মিল্লাতের বিশেষ উদ্যোগে ফাতেমা’র সফল অপারেশন সম্পন্ন হয় ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ)।

উলে­খ্য যে মুজিব বর্ষে পুড়ে যাওয়া, এসিড নিক্ষেপ্ত হওয়া ও বিকলাঙ্গ রোগীদের জন্য সিরাজগঞ্জ উইমেন চেম্বার অব কমার্সের আয়োজনে বিনে খরচায় চিকিৎসার সেবার আয়োজন করা হয় সিরাজগঞ্জের ২৫০ শষ্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনাবেল হাসপাতালে।

সিরাজগঞ্জ সদরের সাংসদ ডা. মিন্নাতে মুন্না’ সহধর্মিনী শারিতা মিল্লাতের উদ্যোগে চিকিৎসা এবং প্রয়োজনে অপারেশন করেন হাঙ্গেরীর বিখ্যাত প্লাস্টিক এন্ড রিকনস্ট্রাকটিভ সার্জন প্রফেসর ড. গ্রেক পাতোকী।

এসময় তার পাশে ছিলেন সিরাজগঞ্জ সদর-কামারখন্দ আসনের সংসদ সদস্য ডা: হাবিবে মিল্লাত এবং সিরাজগঞ্জ উইমেন্স চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্টির সভাপতি শারিতা মিল্লাত।

ফাতেমাকে এই ক্যাম্পেইন থেকেই বাছাই করে ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) অপারেশন করা হয়।

শারিতা মিল্লাতের উদ্যোগে শাহজাদপুরের ফাতেমার সফল অপারেশন হলো ঢাকার সিএমএইচে

প্রকাশিত সময় ১১:২১:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ মার্চ ২০২০

আমিনুল ইসলাম, সিরাজগঞ্জঃ সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া গ্রামের আব্দুর রহমানের মেয়ে ফাতেমা। আট বছরের ফাতেমা স্থানীয় দাখিল মাদ্রায় ক্লাশ থ্রিতে পড়াশোনা করে।

নিজ বাড়ীর উঠানে সমবসয়ীদের সাথে খেলতে গিয়ে মাথায় তালা দিয়ে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত হয়। চিকিৎসার জন্য তাকে নিয়ে যাওয়া হয় পোতাজিয়া হাসপাতালে। পোতাজিয়া হাসপাতালে ৭/৮ দিন চিকিৎসা নেয়ার পর কোন উন্নতির লক্ষন দেখা যায় না। অভিভাবকরা তাকে নিয়ে আসে সিরাজগঞ্জ সদরে।

গত ১২ জানুয়ারী তাকে ভর্তি করে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতালে। সেখানে তেমন কোন উন্নতি হয় না ফাতেমার। বলা যায় কিশোরী ফাতেমা ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে চলে যাচ্ছিল।

কিন্ত ফাতেমার মাথায় আঘাতের কোনই উন্নতি না দেখে হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়ে গরীব পিতা।

অবশেষে লোকে মুখে শুনতে পায় সিরাজগঞ্জ সদর আসনের সাংসদ এবং তার স্ত্রী শারিতা মিল্লাতের উদ্যোগে আগুনে পোড়া, এসিড নিক্ষেপ ও বিকলাঙ্গদের চিকিৎসার জন্য বিদেশ থেকে ডাক্তার এনে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা এবং অপারেশনের আয়োজন করা হয়েছে।

খবরটা শুনে আশান্বিত হয়ে ওঠে পিতা আব্দুর রহমান। খোঁজ নিতে থাকেন। অবশেষে খোঁজ পেলেন ১৪ মার্চ বিদেশী ডাক্তার আসবেন। খোঁজ নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন সুদিনের। মনের ভিতর নানা চিন্তাও ঘুরপাকা খাচ্ছিল। আমার মতো গরীব মানুষের সন্তানের চিকিৎসা কি বিদেশী ডাক্তার সাহেবদের দিয়ে করানো সম্ভব? না জানি না কতো মানুষের ভীড় হবে! টাকা পয়সা লাগবে কি না? লাগলে সেই টাকা কোথায় থেকে জোগাড় করবেন। সদর হাসপাতালে মেয়ের বেডের পাশে শুয়ে শুয়ে ভাবছিলেন পিতা আব্দুর রহমান।

১৪ মার্চ ডাক্তার আসলেন। সাথে এমপি সাহেব এবং তার স্ত্রী শারিতা মিল্লাত। ডাক্তার সাহেবরা ফাতেমাকে দেখলেন। দেখে ডাক্তার বললেন ফাতেমার মাথার আঘাত মারাত্মক। তার চিকিৎসা সিরাজগঞ্জে সম্ভব নয়। সিদ্ধান্ত জানালেন ফাতেমাকে তারা ঢাকায় নিয়ে যাবেন। ভর্তি করাবেন সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে। সেখানেই তার অপারেশন করাবেন। ফাতেমা ফিরে পাবে তার স্বাভাবিকতা।

অবশেষে গতকাল সিরাজগঞ্জ সদরের সাংসদ ডা: হাবিবে মিল্লাত মুন্না’র সহধর্মিনী উইমেন্স চেম্বার এন্ড কমার্সের প্রেসিডেন্ট শারিতা মিল্লাতের বিশেষ উদ্যোগে ফাতেমা’র সফল অপারেশন সম্পন্ন হয় ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ)।

উলে­খ্য যে মুজিব বর্ষে পুড়ে যাওয়া, এসিড নিক্ষেপ্ত হওয়া ও বিকলাঙ্গ রোগীদের জন্য সিরাজগঞ্জ উইমেন চেম্বার অব কমার্সের আয়োজনে বিনে খরচায় চিকিৎসার সেবার আয়োজন করা হয় সিরাজগঞ্জের ২৫০ শষ্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনাবেল হাসপাতালে।

সিরাজগঞ্জ সদরের সাংসদ ডা. মিন্নাতে মুন্না’ সহধর্মিনী শারিতা মিল্লাতের উদ্যোগে চিকিৎসা এবং প্রয়োজনে অপারেশন করেন হাঙ্গেরীর বিখ্যাত প্লাস্টিক এন্ড রিকনস্ট্রাকটিভ সার্জন প্রফেসর ড. গ্রেক পাতোকী।

এসময় তার পাশে ছিলেন সিরাজগঞ্জ সদর-কামারখন্দ আসনের সংসদ সদস্য ডা: হাবিবে মিল্লাত এবং সিরাজগঞ্জ উইমেন্স চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্টির সভাপতি শারিতা মিল্লাত।

ফাতেমাকে এই ক্যাম্পেইন থেকেই বাছাই করে ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) অপারেশন করা হয়।