ঢাকা ০৯:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত সময় ০৫:১১:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০
  • / 11

সিলেট প্রতিনিধিঃ আজ আগুন ঝরা ফাল্গুনের প্রথম দিন। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। ১৯৯১ সালের ১লা ফালগুন ৩২০ একর জায়গায় ৩টি বিভাগে ১২০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে আনুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। সে হিসেবে আজ ২৯তম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস।

বিগত বছরগুলোতে ১৩ ফেব্রুয়ারি এ দিবস পালন করা হলেও এ বছর বাংলা দিনপঞ্জি পরিবর্তিত হওয়ায় ১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলা পহেলা ফালগুনে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন করা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

দিবসটি উপলক্ষে শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) নানা কর্মসূচির আয়োজন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সকাল সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে জাতীয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন তিনি।

এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশগ্রহণে একটি বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মুক্তমে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়। পরবর্তীতে আমন্ত্রিত অতিথিদের নিয়ে কেক কাটার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ, প্রো-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো আনোয়ারুল ইসলাম, সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মস্তাবুর রহমান, নব নির্বাচিত শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. রাশেদ তালুকদার, শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. এস এম সাইফুল ইসলাম, উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. আখতারুল ইসলামসহ বিভিন্ন অনুষদের ডীন, প্রভোস্ট, দপ্তর প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উলে­খ্য, সিলেট শহর থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরে কুমারগাঁওয়ে ৩২০ একর জমির ওপর অবস্থিত এ বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯৯১ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি ৩টি বিভাগ, ১৩ জন শিক্ষক ও ২০৫ জন শিক্ষার্থী নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম সেরা এই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিনির্ভর বিশ্ববিদ্যালয়টি।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

প্রকাশিত সময় ০৫:১১:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০

সিলেট প্রতিনিধিঃ আজ আগুন ঝরা ফাল্গুনের প্রথম দিন। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। ১৯৯১ সালের ১লা ফালগুন ৩২০ একর জায়গায় ৩টি বিভাগে ১২০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে আনুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। সে হিসেবে আজ ২৯তম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস।

বিগত বছরগুলোতে ১৩ ফেব্রুয়ারি এ দিবস পালন করা হলেও এ বছর বাংলা দিনপঞ্জি পরিবর্তিত হওয়ায় ১৪ ফেব্রুয়ারি বাংলা পহেলা ফালগুনে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন করা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

দিবসটি উপলক্ষে শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) নানা কর্মসূচির আয়োজন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

সকাল সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে জাতীয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন তিনি।

এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অংশগ্রহণে একটি বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মুক্তমে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়। পরবর্তীতে আমন্ত্রিত অতিথিদের নিয়ে কেক কাটার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ, প্রো-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো আনোয়ারুল ইসলাম, সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মস্তাবুর রহমান, নব নির্বাচিত শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. রাশেদ তালুকদার, শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. এস এম সাইফুল ইসলাম, উদযাপন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. আখতারুল ইসলামসহ বিভিন্ন অনুষদের ডীন, প্রভোস্ট, দপ্তর প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উলে­খ্য, সিলেট শহর থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরে কুমারগাঁওয়ে ৩২০ একর জমির ওপর অবস্থিত এ বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯৯১ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি ৩টি বিভাগ, ১৩ জন শিক্ষক ও ২০৫ জন শিক্ষার্থী নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম সেরা এই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিনির্ভর বিশ্ববিদ্যালয়টি।