সিরাজগঞ্জের প্রি-পেইড বিদ্যুৎ এর রিচার্জ কার্ড কিনতে না পারায় চরম বিপাকে বিদ্যুৎ গ্রাহক

আমিনুল ইসলাম, সিরাজগঞ্জঃ সিরাজগঞ্জে নেসকোর প্রি-পেইড বিদ্যুৎ এর রিচার্জ কার্ড কিনতে না পারায় চরম বিপাকে পড়েছে বিদ্যুৎ গ্রাহকরা।

বিদ্যুৎ অফিসে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করেও পাচ্ছেন না কার্ড। দায়ীত্বশীল কোন কর্মকর্তা দিচ্ছেন না যথাযথ সদুত্তর। এ কারণে খালি হাতেই ফিরে যেতে হচ্ছে গ্রাহকদের। করোনা ভাইরাসের কারনে সবাইকে যখন বাড়িতে থাকতে বলা হচ্ছে এমন সময়ে বিদ্যুৎ বিহীন অবস্থায় পরিবার পরিজন নিয়ে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে বেশিরভাগ প্রি-পেইড গ্রাহকদের।

গ্রাহকদের অভিযোগ, নেসকো বিদ্যুৎ না দিয়ে নতুন পোস্ট পেইড মিটার নেয়ার তাগিদ দিচ্ছে। এতে করে গ্রাহকদের অতিরিক্ত ১৫০০ টাকা গুনতে হবে। সব কিছু বন্ধে সরকারী নির্দেশনায় এই মুহূর্তে এই খরচ বহন করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে অনেকের কাছেই।

তবে নেসকোর নির্বাহী প্রকৌশলী শনিবার দুপুরে সম্প্রতি ঘোষিত প্রি-পেইড মিটার বাতিল সম্পর্কে গ্রাহকদের আস্বস্ত করে বলেন, আতংকিত হবার কিছু নেই কোন প্রকার মিটার পরিবর্তিত হবেনা। বরং সকল গ্রাহককে স্মার্ট প্রিপেইড কার্ডের আওতায় আনা হবে।

জানাগেছে, নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানী লি. (নেসকোর) বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১/২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে প্রি-পেইড ভেন্ডিং স্টেশনের কারিগরি ত্রুটির কারনে যে সকল গ্রাহক প্রি-পেইড মিটারের রিচার্জ কার্ড ক্রয় করতে পারছে না তাদেরকে নেসকোর কারিগরি দল গ্রাহকদের বাসায় গিয়ে বিদ্যুৎ সেবা প্রদান করবে।

এ বিষয়ে প্রি-পেইড গ্রাহকদের বিচলিত না হয়ে অফিস চলাকালীন সময় সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ০১৭৩১৮৯৩৩৯৮, ০১৭৩৩৭৩৪৩৭২, ০১৭৩৪৮৯৯১৮৯ ও ০১৭৩২৯৮২৬৮০ এই নম্বরে যোগাযোগ করে বিদ্যুৎ সেবা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে জনসমাগম এড়ানোর লক্ষ্যে বিদ্যুৎ অফিসে না এসে মোবাইল ফোনে অত্র দপ্তরের কারিগরি দলকে গ্রাহকের মিটার নম্বর, হিসাব নম্বর এবং ঠিকানা অবহিত করলে কারিগরি দল গ্রাহকের বাসায় গিয়ে জরুরী বিদ্যুৎ সেবা প্রদান করবে। এক্ষেত্রে গ্রাহকদের অত্র দপ্তরকে সহযোগীতার করার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে নেসকোর বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী গবীন্দ্র চন্দ্র সাহার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, প্রি-পেইড ভেন্ডিং স্টেশনের সব গুলো মেশিনের সফটওয়ারের ত্রুটির কারণে গ্রাহকদের রিচার্জ কার্ড সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। সফটওয়ার আপডেট করার জন্য সফটওয়ার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে। কিন্তু সফটওয়ার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান চীনের হওয়ায় বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির কারণে দ্রুত সময়ের মধ্যে সফটওয়ার আপডেট করে ভেন্ডিং স্টেশনের মেশিনগুলো সচল করা সম্ভব হচ্ছেনা। তবে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলেই ভেন্ডিং স্টেশনের মেশিনগুলো সচল করে গ্রাহকদের আবারো প্রি-পেইড সেবা প্রদান করা হবে।

তিনি আরো জানান, সিরাজগঞ্জে প্রি-পেইড গ্রাহক রয়েছে ১৩ হাজার। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সাধারণ ছুটির সময় প্রি-পেইড গ্রাহকরা যেন বিদ্যুৎ সেবা থেকে বঞ্চিত না হয় সেকারণে জরুরী সেবার জন্য নেসকোর ৪টি কারিগরি টিম কাজ শুরু করেছে। বিদ্যুৎ সংক্রান্ত কোন সেবায় কারিগরি টিমের সাথে যোগাযোগ করলে তারা গ্রাহকদের বাসায় গিয়ে বিদ্যুৎ সেবা প্রদান করবে।

গ্রাহকদের বিচলিত না হয়ে তাদেরকে সহযোগীতার করার অনুরোধ জানানো তিনি।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন