সাঁথিয়ায় পেট্রোল ঢেলে ছাত্রীর গায়ে আগুন

সাঁথিয়া(পাবনা)প্রতিনিধিঃ পাবনার সাঁথিয়ায় পূর্বের শত্রুতার জের ধরে পেট্রোল ঢেলে কলেজ ছাত্রীর গায়ে আগুন ঢাকা বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত রবিবার সকাল ১০টায় উপজেলার নাগডেমরা গ্রামের। থানা পুলিশ এ ঘটনায় ২জন মহিলাসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে।
এলাকাবাসী ও লিখিত অভিযোগে জানা যায়, সাঁথিয়া উপজেলার নাগডেমরা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক গংদের সাথে একই গ্রামের

আব্দুস ছালাম গংদের পানি উন্নয়ন বোর্ডের ক্যানাল দখলকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে গত ৩১ জুলাই দু’গ্রুপের মধ্যে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষসহ ব্যাপক লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এব্যাপারে সাঁথিয়া থানায় পৃথক দুটি মামলা হয়।

এ মামলায় উভয় গ্রুপই জামিনে এসে দেশী তেরী অস্ত্রে শান দিতে থাকে। এরই এক পর্যায়ে গত রবিববার সকাল ১০টায় ছালাম গ্রুপের লোকজন মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হক মোজার বাড়িতে হামলা চালায়।

এময় মোজার মেয়ে পাবনা এডওয়াড কলেজের ছাত্রী মুক্তি খাতুন(১৮) বাধা দিতে গেলে তার গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে মুক্তির বুক থেকে পায়ের পাতা পর্যন্ত আগুনে পুড়ে ঝলছে যায়।

মুক্তিকে প্রথমে পাবনা হাসপাতালে নেয়া হলে অবস্থা বেগতি দেখে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখান থেকে ঢাকা বাড ইউনিট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সে এখন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে।

এ ঘটনায় সাঁথিয়া থানা পুলিশ ছালাম গ্রুপের মুক্তিযোদ্ধা গোলাম হোসেন সোনাই(৬০), মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ (৫৫), শুকুর আলী (৩৫), জেলে খাতুন(৩৫), মিনি খাতুন (৪০) কে গ্রেফতার করেছে।

পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম, সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহাঙ্গীর আলম, এ,এসপি সার্কেল বেড়া মিয়া আশিস বিন হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শনসহ ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে ২ বান্ডিল টেউটিন ও নগদ ৬ হাজার টাকার আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করেন। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন