ঢাকা ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com

ভাঙ্গুড়ায় শিশুকে হত্যা করল পাষান্ড পিতা

বার্তাকক্ষ
  • প্রকাশিত সময় ০৯:৪২:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ অগাস্ট ২০১৮
  • / 9

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় জান্নাতি নামের ৯ মাসের এক কন্যা সন্তানকে গলাটিপে হত্যা করেছে ওমর ফারুক (২৮) নামের পাষান্ড পিতা। আটককৃত ওমর ফারুক থানায় পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার উক্তি দিয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (৩০ আগস্ট) বিকালে উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়নের দিলপাশার গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, দিলপাশার গ্রামের স্ত্রী আকলিমা ও স্বামী ওমর ফারুক এর মধ্যে দীর্ঘদিন পারিবারিক কলহ চলছিল।

তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে ওমর ফারুকের স্ত্রী আকলিমা মেয়ে জান্নাতিকে বাড়িতে রেখে পাশের বাড়িতে যায়। এমন সময় পাষান্ড পিতা ওমর ফারুক তার মেয়ে জন্নাতিকে গলাটিপে মৃতু নিশ্চিত করে বাড়ির পাশের ডেবার কচুরিপানার মধ্যে লাশ ফেলে দেয়।

কিছুসময় পরে আকলিমা বাড়িতে এসে মেয়েকে না পেয়ে চিৎকার করতে থাকে। একপর্যায়ে বাড়ির পাশের লোকজন এসে জান্নাতিকে খোঁজাখুঁজির পর বাড়ির পাশের ডেবার কচুরিপানার মধ্য থেকে তাকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে।

এসময় স্থানীয় জনতা পাষান্ড পিতা ওমর ফারুককে আটক করে জিজ্ঞাসবাদে জান্নাতিকে হত্যার কথা স্বীকার করে। তখন উত্তেজিত জনতা তাকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে খবর দেয়। ওইদিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে ভাঙ্গুড়া থানার পুলিশ জান্নাতির লাশ ও পাষান্ড পিতা ওমর ফারুককে থানায় নিয়ে আসে।

এব্যপারে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি(তদন্ত) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে মেয়ে জান্নাতিকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে ওমর ফারুক। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করে শুক্রবার সকালে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। অপরদিকে লাশ ময়না তদন্তের জন্য পাবনা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে ।

ভাঙ্গুড়ায় শিশুকে হত্যা করল পাষান্ড পিতা

প্রকাশিত সময় ০৯:৪২:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ অগাস্ট ২০১৮

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় জান্নাতি নামের ৯ মাসের এক কন্যা সন্তানকে গলাটিপে হত্যা করেছে ওমর ফারুক (২৮) নামের পাষান্ড পিতা। আটককৃত ওমর ফারুক থানায় পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার উক্তি দিয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (৩০ আগস্ট) বিকালে উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়নের দিলপাশার গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, দিলপাশার গ্রামের স্ত্রী আকলিমা ও স্বামী ওমর ফারুক এর মধ্যে দীর্ঘদিন পারিবারিক কলহ চলছিল।

তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে ওমর ফারুকের স্ত্রী আকলিমা মেয়ে জান্নাতিকে বাড়িতে রেখে পাশের বাড়িতে যায়। এমন সময় পাষান্ড পিতা ওমর ফারুক তার মেয়ে জন্নাতিকে গলাটিপে মৃতু নিশ্চিত করে বাড়ির পাশের ডেবার কচুরিপানার মধ্যে লাশ ফেলে দেয়।

কিছুসময় পরে আকলিমা বাড়িতে এসে মেয়েকে না পেয়ে চিৎকার করতে থাকে। একপর্যায়ে বাড়ির পাশের লোকজন এসে জান্নাতিকে খোঁজাখুঁজির পর বাড়ির পাশের ডেবার কচুরিপানার মধ্য থেকে তাকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে।

এসময় স্থানীয় জনতা পাষান্ড পিতা ওমর ফারুককে আটক করে জিজ্ঞাসবাদে জান্নাতিকে হত্যার কথা স্বীকার করে। তখন উত্তেজিত জনতা তাকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে খবর দেয়। ওইদিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে ভাঙ্গুড়া থানার পুলিশ জান্নাতির লাশ ও পাষান্ড পিতা ওমর ফারুককে থানায় নিয়ে আসে।

এব্যপারে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি(তদন্ত) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে মেয়ে জান্নাতিকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে ওমর ফারুক। তার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করে শুক্রবার সকালে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। অপরদিকে লাশ ময়না তদন্তের জন্য পাবনা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে ।