ঢাকা ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com // দৈনিক স্বতঃকণ্ঠ অনলাইন ও প্রিন্ট পত্রিকায় বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৭১১-৩৩৩৮১১, ০১৭৪৪-১২৪৮১৪

বিয়ের জন্য ছুটিতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে প্রবাসীর মৃত্যু

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত সময় ০৫:১১:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৪
  • / 82

ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত সিঙ্গাপুর প্রবাসী অঞ্জন কুমার সাহা।



পাবনার ঈশ্বরদীতে বিয়ে করার জন্য ছুটিতে বাড়িতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে অকালে প্রাণ হারালেন সিঙ্গাপুর প্রবাসী অঞ্জন কুমার সাহা (২৮)।

রবিবার ২৮ এপ্রিল ভোরে ঈশ্বরদী রেলগেটের অদূরে তিনকোনা পুকুরের পাশে দুই রেললাইনে মাঝে ট্রেনে গলা কাটা মরদেহ পড়েছিল।

নিহত অঞ্জন ঈশ্বরদী পৌর এলাকার পিয়ারাখালী জামতলা এলাকার অনন্ত কুমার সাহার ছেলে।

নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে স্থানীয়রা জানান, অঞ্জন বেশ কয়েক বছর ধরে সিঙ্গাপুরে প্রবাসী ছিলেন। বিয়ে করার জন্য গত সপ্তাহে তিনি দেশে আসেন। তার বিয়ের কথাবার্তা চলছিল। গতকাল রবিবার সকালে পাত্রী দেখতে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সকালে বাড়ির পাশে রেল লাইনের মাঝে ট্রেনে গলাকাটা মরদেহ দেখতে পাওয়া যায়।

নিহতের বাবা অনন্ত কুমার সাহা জানান, অঞ্জন বিগত চার বছর ধরে সিঙ্গাপুর ছিল। বিয়ে করার জন্য গত ১৬ এপ্রিল ৩ মাসের ছুটিতে দেশে ফিরেছে। শনিবার রাতে বিদ্যুতের তীব্র লোডশেডিংয়ের কারণে অঞ্জন মধ্যরাতে বাড়ী থেকে বের হয়। এরপর আর বাড়িতে ফিরেনি। সকালে রেললাইনের মাঝে তার গলাকাটা মরদেহ দেখা যায়।

তবে এটি দুর্ঘটনা না আত্মহত্যা, কিংবা হত্যা তা নিশ্চিতভাবে বলতে পারেননি নিহত অঞ্জনের বাবা অনন্ত কুমার সাহা।

রেলওয়ে থানা ও ঈশ্বরদী রেলওয়ে স্টেশনে কর্মরত স্টাফদের সুত্রে জানা যায়, রাতে নির্ধারিত সময়ের চেয়ে বেশ কিছুটা সময় দেরিতে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা চিলাহাটিগামী আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস জংশন স্টেশনে প্রবেশকালে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। সুত্রগুলোর ধারণা, বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকায় প্রচন্ড গরমের কারণে ঘটনার সময় অঞ্জন রেললাইন পার হচ্ছিল। এই সময় অসাবধানতাবশত ট্রেনের নিচে পড়ে গেলে ট্রেনের চাকা তার গলার উপর দিয়ে উঠে যায়। এতে গলা কেটে তার মৃত্যু হয়েছে।

ঈশ্বরদী রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ হাবিবুর রহমান হাবিব জানান, আলামত দেখে ও নিহত অঞ্জনের আত্মীয় ও বন্ধুদের থেকে পাওয়া তথ্যেও ভিত্তিতে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটা আত্মহত্যা। বিদেশ থেকে দেশে এসে নানা দুশ্চিন্তায় হতাশাগ্রস্ত হয়ে সে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে। এ বিষয়ে রেলওয়ে থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের নিকট মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

তারপরও মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়ার জন্য অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে বলেও জানান ওসি।

এই রকম আরও টপিক

বিয়ের জন্য ছুটিতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে প্রবাসীর মৃত্যু

প্রকাশিত সময় ০৫:১১:২২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৪



পাবনার ঈশ্বরদীতে বিয়ে করার জন্য ছুটিতে বাড়িতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে অকালে প্রাণ হারালেন সিঙ্গাপুর প্রবাসী অঞ্জন কুমার সাহা (২৮)।

রবিবার ২৮ এপ্রিল ভোরে ঈশ্বরদী রেলগেটের অদূরে তিনকোনা পুকুরের পাশে দুই রেললাইনে মাঝে ট্রেনে গলা কাটা মরদেহ পড়েছিল।

নিহত অঞ্জন ঈশ্বরদী পৌর এলাকার পিয়ারাখালী জামতলা এলাকার অনন্ত কুমার সাহার ছেলে।

নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে স্থানীয়রা জানান, অঞ্জন বেশ কয়েক বছর ধরে সিঙ্গাপুরে প্রবাসী ছিলেন। বিয়ে করার জন্য গত সপ্তাহে তিনি দেশে আসেন। তার বিয়ের কথাবার্তা চলছিল। গতকাল রবিবার সকালে পাত্রী দেখতে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সকালে বাড়ির পাশে রেল লাইনের মাঝে ট্রেনে গলাকাটা মরদেহ দেখতে পাওয়া যায়।

নিহতের বাবা অনন্ত কুমার সাহা জানান, অঞ্জন বিগত চার বছর ধরে সিঙ্গাপুর ছিল। বিয়ে করার জন্য গত ১৬ এপ্রিল ৩ মাসের ছুটিতে দেশে ফিরেছে। শনিবার রাতে বিদ্যুতের তীব্র লোডশেডিংয়ের কারণে অঞ্জন মধ্যরাতে বাড়ী থেকে বের হয়। এরপর আর বাড়িতে ফিরেনি। সকালে রেললাইনের মাঝে তার গলাকাটা মরদেহ দেখা যায়।

তবে এটি দুর্ঘটনা না আত্মহত্যা, কিংবা হত্যা তা নিশ্চিতভাবে বলতে পারেননি নিহত অঞ্জনের বাবা অনন্ত কুমার সাহা।

রেলওয়ে থানা ও ঈশ্বরদী রেলওয়ে স্টেশনে কর্মরত স্টাফদের সুত্রে জানা যায়, রাতে নির্ধারিত সময়ের চেয়ে বেশ কিছুটা সময় দেরিতে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা চিলাহাটিগামী আন্তঃনগর সীমান্ত এক্সপ্রেস জংশন স্টেশনে প্রবেশকালে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। সুত্রগুলোর ধারণা, বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকায় প্রচন্ড গরমের কারণে ঘটনার সময় অঞ্জন রেললাইন পার হচ্ছিল। এই সময় অসাবধানতাবশত ট্রেনের নিচে পড়ে গেলে ট্রেনের চাকা তার গলার উপর দিয়ে উঠে যায়। এতে গলা কেটে তার মৃত্যু হয়েছে।

ঈশ্বরদী রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ হাবিবুর রহমান হাবিব জানান, আলামত দেখে ও নিহত অঞ্জনের আত্মীয় ও বন্ধুদের থেকে পাওয়া তথ্যেও ভিত্তিতে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটা আত্মহত্যা। বিদেশ থেকে দেশে এসে নানা দুশ্চিন্তায় হতাশাগ্রস্ত হয়ে সে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে। এ বিষয়ে রেলওয়ে থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের নিকট মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

তারপরও মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়ার জন্য অধিকতর গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে বলেও জানান ওসি।