ঢাকা ০২:৩১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com // দৈনিক স্বতঃকণ্ঠ অনলাইন ও প্রিন্ট পত্রিকায় বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৭১১-৩৩৩৮১১, ০১৭৪৪-১২৪৮১৪

পৌরকর বৃদ্ধির ব্যাপারে যে ব্যাখ্যা দিলো ঈশ্বরদী পৌরসভা

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত সময় ০৮:৩৮:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪
  • / 22



পাবনার ঈশ্বরদী পৌরসভার পৌরকর বৃদ্ধির ব্যাখ্যা ও পৌরকর বৃদ্ধির প্রতিবাদে শহরবাসীর মানববন্ধনের জবাব দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে ঈশ্বরদী পৌর কর্তৃপক্ষ।

সোমবার ১০ জুন বেলা ১২ টায় ঈশ্বরদী পৌরসভার হলরুমে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে পৌরকর বৃদ্ধির ব্যাখ্যা দিয়ে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র মোঃ ইছাহক আলী মালিথা।

লিখিত বক্তব্যে পৌর মেয়র বলেন, সরকারি নীতিমালা অনুসারেই পৌরকর বৃদ্ধি করা হয়েছে। অথচ একটি কুচক্রীমহল সরকার ভিন্নমতের কতিপয় কিছু মানুষ পৌরসভা ও পৌর পরিষদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার লক্ষ্যে মানববন্ধন করেছেন। আমরা স্থানীয় ঈশ্বরদী পৌরবাসীর কথা বিবেচনা পূর্বক এবং পাশাপাশি অন্যান্য পৌরসভার সহিত তুলনা করে আমরা চূড়ান্ত ট্যাক্স ধার্য করে থাকি। এখানে আরও উল্লেখ্য যে, পাবনা সদর পৌরসভার ট্যাক্স যে পরিমাণ ধার্য করা আছে সেই তুলনায় ঈশ্বরদী পৌরসভার ট্যাক্স অনেকাংশে কম। যেহেতু পৌরসভা পরিচালিত হয় জনগণের ট্যাক্সের টাকায়। সেহেতু ট্যাক্স নির্ধারণ ও আদায় অপরিহার্য।

পৌরকর নির্ধারনের যে ব্যাখ্যা হয়েছে, ১) ইমারতের নির্মাণ ব্যায়ের উপর সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী (PWD) রেইটের মাধ্যমে ইমারতে বার্ষিক মূল্যায়ন ধার্য করে পৌর হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণ করা হয়।

২) বে-সরকারী প্রতিষ্ঠান ইমারত ও সাধারণ মানুষের বসবাস, ভাড়া দেওয়া ইমারতের উপর মাসিক ভাড়া নির্ধারণ করে বাৎসরিক মূল্যায়ন নির্ধারণ বিধান রয়েছে। এমতাবস্থায়, স্থানীয় সরকার পৌরসভ্য কর তপশিল অনুযায়ী সঠিক ভাড়া নির্ধারণ পূর্বক বাৎসরিক মূল্যায়ন ভিত্তিতে পৌর ট্যাক্স শতভাগ নির্ধারণ করা হলে একতলা ও বহুতল ভবনের বাৎসরিক হোল্ডিং ট্যাক্স বহু গুনে বৃদ্ধি পাইতো। উদাহরণ স্বরুপ আমরা বলতে পারি, ৫তলা বিল্ডিংএ ভাড়ার বাস্তব চিত্র মাসিক ভাড়া প্রতি ইউনিট ১০০০০/- টাকা হলে ৫তলার ভাড়া হবে ৫০০০০/- হাজার টাকা। এক বছরের ভাড়া হবে ৬,০০,০০০/- টাকা, ২ মাসের ভাড়া ১,০০,০০০/- টাকা মেরামত বাবদ বাদ দিলে ৫,০০,০০০/- টাকা ব্যাৎসরিক মূল্যায়ন নির্ধারিত হয়। নির্ধারিত মূল্যের উপর সর্বচ্চ ২৭% পৌর কর ধার্য্যের বিধান অনুযায়ী উক্ত বিল্ডিং এর বাৎসরিক পৌর হোল্ডিং ট্যাক্স ১,৩৫,০০০/- টাকা ধার্য হবে। কিন্তু আমরা পৌরসভা উক্ত বিল্ডিং এর মাসিক ভাড়া ধরেছি মাত্র ৫,০০০/- × ১০ মাস = ৫০,০০০/- টাকা বাৎসরিক মূল্যায়ন ধার্য করে ২৭% হিসাবে বাৎসরিক ট্যাক্স ধার্য করা হইয়াছে ১৩,৫০০/- টাকা মাত্র। এখানে আমরা সরকারী নীতিমালা বহিরভুতভাবে সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে ১০০ ভাগের ১০ ভাগ ট্যাক্স ধার্য করেছি।

৩) পৌরসভার আদর্শ কর তপশিল ২০১৪ এর মূল্যায়ন তালিকা অনুযায়ী নতুন নির্মিত ইমারত তৈরির ক্ষেত্রে নতুন হোল্ডিং ট্যাক্স করতে হয়। এক্ষেত্রে নতুন ইমারতের জন্য, নতুন ট্যাক্স ১০০০/- টাকা ধার্য করা হইয়াছে। উক্ত বিল্ডিং তৈরি করতে ২/৩ বছর সময় লাগতে পারে। এক্ষেত্রে রি- এ্যাসেসমেন্টের সময় উক্ত বিল্ডিংটি সম্পূর্ণ হওয়ায় নতুন ট্যাক্স ৬,৭৫০/- টাকা ধার্য করা হয়েছে। বিল্ডিং মালিক ট্যাক্সের মূল্যায়ন তালিকা বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রশ্ন করতে পারে আমার ট্যাক্স ১০০০/- টাকা ছিলো। হঠাৎ করে ৬,৫০০/- টাকা কেন হইয়াছে এবং কিভাবে সম্বভ। এটাই হচ্ছে বাস্তব চিত্র। আমরা এই ভাবে বলতে পারি যে, প্রতি ৫ বছর অন্তর অন্তর যে রি-এ্যাসেসমেন্ট করে থাকি সেটা এরূপ যে, প্রস্তাবিত বাজেট এবং সংশোধিত বাজেটের সহিত তুলনা করা যেতে পারে।

মেয়র আরও বলেন, ঈশ্বরদী পৌরসভা বিগত কয়েক বছর ধরে সকল ক্ষেত্রে রাজশাহী বিভাগের সকল পৌরসভার মধ্যে শ্রেষ্ঠতম পৌরসভা হিসাবে পরিগণিত হয়েছে। এই সুনাম ধরে রাখার জন্য পৌরসভার সকল সম্মানিত পৌরবাসী বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার মানুষের কাছে সর্বাত্বক সহযোগীতা কামনা করছি। পরিশেষে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে ঈশ্বরদী পৌরসভার সকল ক্ষেত্রে ঈশ্বরদী পৌরসভাকে স্মার্ট পৌরসভায় রূপান্তর করার লক্ষ্যে সকল সম্মানিত পৌরবাসীর সার্বিক সহযোগীতা কামনা করছি।

এসময় পৌরসভার সচিব ও কাউন্সিলরবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এই রকম আরও টপিক

পৌরকর বৃদ্ধির ব্যাপারে যে ব্যাখ্যা দিলো ঈশ্বরদী পৌরসভা

প্রকাশিত সময় ০৮:৩৮:৩২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুন ২০২৪



পাবনার ঈশ্বরদী পৌরসভার পৌরকর বৃদ্ধির ব্যাখ্যা ও পৌরকর বৃদ্ধির প্রতিবাদে শহরবাসীর মানববন্ধনের জবাব দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে ঈশ্বরদী পৌর কর্তৃপক্ষ।

সোমবার ১০ জুন বেলা ১২ টায় ঈশ্বরদী পৌরসভার হলরুমে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে পৌরকর বৃদ্ধির ব্যাখ্যা দিয়ে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ঈশ্বরদী পৌরসভার মেয়র মোঃ ইছাহক আলী মালিথা।

লিখিত বক্তব্যে পৌর মেয়র বলেন, সরকারি নীতিমালা অনুসারেই পৌরকর বৃদ্ধি করা হয়েছে। অথচ একটি কুচক্রীমহল সরকার ভিন্নমতের কতিপয় কিছু মানুষ পৌরসভা ও পৌর পরিষদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার লক্ষ্যে মানববন্ধন করেছেন। আমরা স্থানীয় ঈশ্বরদী পৌরবাসীর কথা বিবেচনা পূর্বক এবং পাশাপাশি অন্যান্য পৌরসভার সহিত তুলনা করে আমরা চূড়ান্ত ট্যাক্স ধার্য করে থাকি। এখানে আরও উল্লেখ্য যে, পাবনা সদর পৌরসভার ট্যাক্স যে পরিমাণ ধার্য করা আছে সেই তুলনায় ঈশ্বরদী পৌরসভার ট্যাক্স অনেকাংশে কম। যেহেতু পৌরসভা পরিচালিত হয় জনগণের ট্যাক্সের টাকায়। সেহেতু ট্যাক্স নির্ধারণ ও আদায় অপরিহার্য।

পৌরকর নির্ধারনের যে ব্যাখ্যা হয়েছে, ১) ইমারতের নির্মাণ ব্যায়ের উপর সরকারী নীতিমালা অনুযায়ী (PWD) রেইটের মাধ্যমে ইমারতে বার্ষিক মূল্যায়ন ধার্য করে পৌর হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণ করা হয়।

২) বে-সরকারী প্রতিষ্ঠান ইমারত ও সাধারণ মানুষের বসবাস, ভাড়া দেওয়া ইমারতের উপর মাসিক ভাড়া নির্ধারণ করে বাৎসরিক মূল্যায়ন নির্ধারণ বিধান রয়েছে। এমতাবস্থায়, স্থানীয় সরকার পৌরসভ্য কর তপশিল অনুযায়ী সঠিক ভাড়া নির্ধারণ পূর্বক বাৎসরিক মূল্যায়ন ভিত্তিতে পৌর ট্যাক্স শতভাগ নির্ধারণ করা হলে একতলা ও বহুতল ভবনের বাৎসরিক হোল্ডিং ট্যাক্স বহু গুনে বৃদ্ধি পাইতো। উদাহরণ স্বরুপ আমরা বলতে পারি, ৫তলা বিল্ডিংএ ভাড়ার বাস্তব চিত্র মাসিক ভাড়া প্রতি ইউনিট ১০০০০/- টাকা হলে ৫তলার ভাড়া হবে ৫০০০০/- হাজার টাকা। এক বছরের ভাড়া হবে ৬,০০,০০০/- টাকা, ২ মাসের ভাড়া ১,০০,০০০/- টাকা মেরামত বাবদ বাদ দিলে ৫,০০,০০০/- টাকা ব্যাৎসরিক মূল্যায়ন নির্ধারিত হয়। নির্ধারিত মূল্যের উপর সর্বচ্চ ২৭% পৌর কর ধার্য্যের বিধান অনুযায়ী উক্ত বিল্ডিং এর বাৎসরিক পৌর হোল্ডিং ট্যাক্স ১,৩৫,০০০/- টাকা ধার্য হবে। কিন্তু আমরা পৌরসভা উক্ত বিল্ডিং এর মাসিক ভাড়া ধরেছি মাত্র ৫,০০০/- × ১০ মাস = ৫০,০০০/- টাকা বাৎসরিক মূল্যায়ন ধার্য করে ২৭% হিসাবে বাৎসরিক ট্যাক্স ধার্য করা হইয়াছে ১৩,৫০০/- টাকা মাত্র। এখানে আমরা সরকারী নীতিমালা বহিরভুতভাবে সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে ১০০ ভাগের ১০ ভাগ ট্যাক্স ধার্য করেছি।

৩) পৌরসভার আদর্শ কর তপশিল ২০১৪ এর মূল্যায়ন তালিকা অনুযায়ী নতুন নির্মিত ইমারত তৈরির ক্ষেত্রে নতুন হোল্ডিং ট্যাক্স করতে হয়। এক্ষেত্রে নতুন ইমারতের জন্য, নতুন ট্যাক্স ১০০০/- টাকা ধার্য করা হইয়াছে। উক্ত বিল্ডিং তৈরি করতে ২/৩ বছর সময় লাগতে পারে। এক্ষেত্রে রি- এ্যাসেসমেন্টের সময় উক্ত বিল্ডিংটি সম্পূর্ণ হওয়ায় নতুন ট্যাক্স ৬,৭৫০/- টাকা ধার্য করা হয়েছে। বিল্ডিং মালিক ট্যাক্সের মূল্যায়ন তালিকা বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রশ্ন করতে পারে আমার ট্যাক্স ১০০০/- টাকা ছিলো। হঠাৎ করে ৬,৫০০/- টাকা কেন হইয়াছে এবং কিভাবে সম্বভ। এটাই হচ্ছে বাস্তব চিত্র। আমরা এই ভাবে বলতে পারি যে, প্রতি ৫ বছর অন্তর অন্তর যে রি-এ্যাসেসমেন্ট করে থাকি সেটা এরূপ যে, প্রস্তাবিত বাজেট এবং সংশোধিত বাজেটের সহিত তুলনা করা যেতে পারে।

মেয়র আরও বলেন, ঈশ্বরদী পৌরসভা বিগত কয়েক বছর ধরে সকল ক্ষেত্রে রাজশাহী বিভাগের সকল পৌরসভার মধ্যে শ্রেষ্ঠতম পৌরসভা হিসাবে পরিগণিত হয়েছে। এই সুনাম ধরে রাখার জন্য পৌরসভার সকল সম্মানিত পৌরবাসী বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার মানুষের কাছে সর্বাত্বক সহযোগীতা কামনা করছি। পরিশেষে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে ঈশ্বরদী পৌরসভার সকল ক্ষেত্রে ঈশ্বরদী পৌরসভাকে স্মার্ট পৌরসভায় রূপান্তর করার লক্ষ্যে সকল সম্মানিত পৌরবাসীর সার্বিক সহযোগীতা কামনা করছি।

এসময় পৌরসভার সচিব ও কাউন্সিলরবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।