ঢাকা ০৮:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞপ্তি :
সারাদেশের জেলা উপোজেলা পর্যায়ে দৈনিক স্বতঃকণ্ঠে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে । আগ্রহী প্রার্থীগন জীবন বৃত্তান্ত ইমেইল করুন shatakantha.info@gmail.com // দৈনিক স্বতঃকণ্ঠ অনলাইন ও প্রিন্ট পত্রিকায় বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন ০১৭১১-৩৩৩৮১১, ০১৭৪৪-১২৪৮১৪

পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কর্মীদের অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি ও প্রতিবাদ সভা

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত সময় ০২:৩৫:৩০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪
  • / 29



পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি গুলোতে বেতন বৈষম্য, মানহীন ও নিম্নমানের মালামাল সরবরাহের কারণে ভঙ্গুর বিতরণ ব্যবস্থা নিরসনসহ অভিন্ন চাকরি বিধি ও চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি পালন করছেন।

তবে জরুরী গ্রাহক সেবা ও বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রেখে গত সোমবার থেকে এ কর্মসূচি চলছে।

সমিতির প্রধান কার্যালয়সহ ৩টি জোনাল অফিস ও একটি সাব-জোনাল অফিস, এরিয়া অফিস ও অভিযোগ কেন্দ্রসহ ৫ শতাধিক কর্মকর্তা কর্মচারীগণ এ কর্মবিরতিতে যোগ দেন। তারা ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত চাটমোহরে অবস্থিত পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর প্রধান কার্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচিতে সমিতির বিভিন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বক্তব্য রাখেন।

পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর সহকারী জেনারেল ম্যানেজার (এজিএম আইটি) মো.সামিরুল ইসলাম বলেন, স্মার্ট ও টেকসই বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড এবং পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি একীভূতকরণ সহ অভিন্ন চাকুরি বিধি বাস্তবায়নের দাবিতে এ কর্মসূচি চলমান রয়েছে। গত সোমবার থেকে কর্মসূচি শুরু হয়েছে এবং দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলমান থাকবে।

বুধবার (৩ জুলাই) সকাল থেকে শুরু হওয়া প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে টেকসই বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা ও মানসম্মত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক নিম্নমানের বৈদ্যুতিক মালামাল ক্রয়ের মাধ্যমে ভঙ্গুর বিতরণ ব্যবস্থা, প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোগত জটিলতা এবং পলিসি প্রণয়নে অদক্ষতার কারণে সাধারণ গ্রাহকদের ভোগান্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সঙ্গে সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ প্রতি নিয়ত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন।

জানা গেছে, দেশের ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রায় ৪০ হাজার কর্মকর্তা কর্মচারী গত ৫ মে থেকে জরুরী বিদ্যুৎ সেবা চালু রেখে কর্মবিরতিতে নামেন। এসময় বিদ্যুৎ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ১৫ দিনের মধ্যে আলোচনায় বসে দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাসে তারা সেসময় কর্মবিরতি স্থগিত করে কাজে যোগ দেন।

কিন্তু গত প্রায় দুই মাস অতিবাহিত হলেও ওই সমস্যার সমাধান না হওয়ায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সোমবার হতে ফের কর্ম বিরতি শুরু করেন পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কর্মকর্তা কর্মচারীগণ। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে আন্দোলনরত কর্মকর্তা কর্মচারীরা জানিয়েছেন। তবে জরুরী গ্রাহক সেবা ও বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক থাকবে বলে জানান তারা।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, এজিএম (এইচ আর) কুদরত-ই ইলাহী, জুনিয়র ইন্জিনিয়ার মো. হাসানুজ্জামান, লাইন টেকনিশিয়ান আক্তার উদ্দিন, লাইন ম্যান সাজেদুর রহমান, মিটার রিডার (কাম ম্যাসেন্জার) সাইফুল ইসলাম, লাইন টেকনিশিয়ান তারাজুল ইসলাম, লাইন শ্রমিক রাসেল আহমেদ, লাইন টেকনিশয়ান মহিউদ্দিন, প্রমুখ।

আরও উপস্থিত ছিলেন, ডিজিএম (কারিগরি) সুহেল আক্তার, এজিএম (অর্থ) সিরাজুল ইসলাম, এজিএম (ওএন্ডএম) ইসরাফিল আলম মিলন, এজিএম (ওএন্ডএম) রউফুজ্জামান, এজিএম (ইএন্ডসি) সুফিয়া আমির, এজিএম (ওএন্ডএম) আলহাজ উদ্দিনসহ পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

এই রকম আরও টপিক

পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কর্মীদের অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি ও প্রতিবাদ সভা

প্রকাশিত সময় ০২:৩৫:৩০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪



পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি গুলোতে বেতন বৈষম্য, মানহীন ও নিম্নমানের মালামাল সরবরাহের কারণে ভঙ্গুর বিতরণ ব্যবস্থা নিরসনসহ অভিন্ন চাকরি বিধি ও চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি পালন করছেন।

তবে জরুরী গ্রাহক সেবা ও বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রেখে গত সোমবার থেকে এ কর্মসূচি চলছে।

সমিতির প্রধান কার্যালয়সহ ৩টি জোনাল অফিস ও একটি সাব-জোনাল অফিস, এরিয়া অফিস ও অভিযোগ কেন্দ্রসহ ৫ শতাধিক কর্মকর্তা কর্মচারীগণ এ কর্মবিরতিতে যোগ দেন। তারা ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত চাটমোহরে অবস্থিত পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর প্রধান কার্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচিতে সমিতির বিভিন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বক্তব্য রাখেন।

পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর সহকারী জেনারেল ম্যানেজার (এজিএম আইটি) মো.সামিরুল ইসলাম বলেন, স্মার্ট ও টেকসই বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড এবং পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি একীভূতকরণ সহ অভিন্ন চাকুরি বিধি বাস্তবায়নের দাবিতে এ কর্মসূচি চলমান রয়েছে। গত সোমবার থেকে কর্মসূচি শুরু হয়েছে এবং দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলমান থাকবে।

বুধবার (৩ জুলাই) সকাল থেকে শুরু হওয়া প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে টেকসই বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা ও মানসম্মত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কর্তৃক নিম্নমানের বৈদ্যুতিক মালামাল ক্রয়ের মাধ্যমে ভঙ্গুর বিতরণ ব্যবস্থা, প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোগত জটিলতা এবং পলিসি প্রণয়নে অদক্ষতার কারণে সাধারণ গ্রাহকদের ভোগান্তি বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সঙ্গে সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ প্রতি নিয়ত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন।

জানা গেছে, দেশের ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রায় ৪০ হাজার কর্মকর্তা কর্মচারী গত ৫ মে থেকে জরুরী বিদ্যুৎ সেবা চালু রেখে কর্মবিরতিতে নামেন। এসময় বিদ্যুৎ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ১৫ দিনের মধ্যে আলোচনায় বসে দাবি বাস্তবায়নের আশ্বাসে তারা সেসময় কর্মবিরতি স্থগিত করে কাজে যোগ দেন।

কিন্তু গত প্রায় দুই মাস অতিবাহিত হলেও ওই সমস্যার সমাধান না হওয়ায় কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সোমবার হতে ফের কর্ম বিরতি শুরু করেন পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর কর্মকর্তা কর্মচারীগণ। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে আন্দোলনরত কর্মকর্তা কর্মচারীরা জানিয়েছেন। তবে জরুরী গ্রাহক সেবা ও বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক থাকবে বলে জানান তারা।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, এজিএম (এইচ আর) কুদরত-ই ইলাহী, জুনিয়র ইন্জিনিয়ার মো. হাসানুজ্জামান, লাইন টেকনিশিয়ান আক্তার উদ্দিন, লাইন ম্যান সাজেদুর রহমান, মিটার রিডার (কাম ম্যাসেন্জার) সাইফুল ইসলাম, লাইন টেকনিশিয়ান তারাজুল ইসলাম, লাইন শ্রমিক রাসেল আহমেদ, লাইন টেকনিশয়ান মহিউদ্দিন, প্রমুখ।

আরও উপস্থিত ছিলেন, ডিজিএম (কারিগরি) সুহেল আক্তার, এজিএম (অর্থ) সিরাজুল ইসলাম, এজিএম (ওএন্ডএম) ইসরাফিল আলম মিলন, এজিএম (ওএন্ডএম) রউফুজ্জামান, এজিএম (ইএন্ডসি) সুফিয়া আমির, এজিএম (ওএন্ডএম) আলহাজ উদ্দিনসহ পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।