সুশৃঙ্খল ও শান্তিপুর্ণ পরিবেশে সারাদেশে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু

এসএসসি ২০২২ পরীক্ষার প্রথমদিন পাবনায়।

স্বতঃকণ্ঠ অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:৩০ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২২

মহামারী ও বন্যার কারণে সাত মাস পিছিয়ে যাওয়া চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার প্রথমদিনে বৃহস্পতিবার দেশের তিন হাজার ৬৮১টি কেন্দ্রে এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১৯ লাখ ৩৯ হাজার ৭১ জন। এর মধ্যে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন ১৯ লাখ ৫ হাজার ২১১ জন। অনুপস্থিত ছিল ৩৩ হাজার ৮৬০ জন পরীক্ষার্থী। আর অসদুপায় অবলম্বনের কারণে বহিষ্কার হয়েছে ২৬ শিক্ষার্থী।

পাবনা

পাবনায় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু
সারা দেশের মত পাবনাতেও শুরু হয়েছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। পাবনা জেলায় এবার ৬০ টি কেন্দ্র থেকে এসএসসি, দাখিল, দাখিল ভকেশনাল এবং এসএসসি কারীগরি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন ৩৮ হাজার ৩২৯ জন শিক্ষার্থী।

সকালে পাবনা জেলা স্কুল ও সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক বিশ্বাস রাসেল হোসেন।

ফেনী

ফেনীতে এসএসসি পরীক্ষার সুশৃঙ্খলা বজায় রাখতে প্রশাসন তৎপর
পা দিয়ে লিখে দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছে রাসেল

ফেনী
ফেনী

বন্যার কারণে স্থগিত হওয়া এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আজ। বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) থেকে শুরু হয়েছে এসএসসি পরীক্ষা চলবে ১ অক্টোবর পর্যন্ত। প্রতিটি পরীক্ষা বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত চলবে। দুই ঘণ্টার এই পরীক্ষায় এমসিকিউ ২০ মিনিট, লিখিত ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট। পরীক্ষাকেন্দ্রে ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের প্রবেশ করতে হবে।

একযোগে অনুষ্ঠিতব্য সারাদেশের মতো ফেনীতে শুরু হয়েছে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা। এ বছর এসএসসি ও সমমানে জেলায় মোট ২৪ হাজার ৬৬৬ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে বলে জেলা প্রশাসন সূত্র নিশ্চিত করেছে। অন্যদিকে গেলো বছরে মোট ২৭ হাজার ৪০২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। এতে গত বছরের তুলনায় এবার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে ২ হাজার ৭৩২ জন।

ফেনী জেলা প্রশাসক, আবু সেলিম মাহমুদ-উল-হাসান জানান, পরীক্ষার শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ফেনী জেলা প্রশাসন তৎপর রয়েছে, জেলার ৩৬ টি পরীক্ষা কেন্দ্রে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ২২ জন ম্যাজিস্ট্রেট মাঠ পর্যায়ে দায়িত্ব পালন করবেন।

বৈশ্বিক অতিমারী কোভিড ১৯-এর কারণে পরীক্ষার বিষয়, নম্বর ও সময় কমিয়ে এনে পুনর্বিন্যাসকৃত সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে এবারের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।পরীক্ষার শুরুর সময় পরিবর্তন করে সকাল ১০টার পরিবর্তে বেলা ১১টা করা হয়েছে। এছাড়া পরীক্ষার সময় ৩ ঘণ্টা থেকে ২ ঘণ্টা করা হয়েছে। এর মধ্যে এমসিকিউ ২০ মিনিট ও সিকিউ পরীক্ষা ১ ঘণ্টা ৪০ মিনিট।

ফেনী জেলা প্রশাসনের শিক্ষা শাখা সূত্রে জানা যায়, চলতি বছর ফেনী জেলায় এসএসসিতে ২০ হাজার ৯৫৩ জন ও দাখিলে ৫ হাজার ৩৬৬ জন, এসএসসি (ভোকেশনাল) ১ হাজার ৬৫ ও দাখিল (ভোকেশনাল) ১৮ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। জেলায় এসএসসিতে ১৯টি, দাখিলে ৯টি, এসএসসি (ভোকেশনাল) ৬টি এবং দাখিল (ভোকেশনাল) ১টি কেন্দ্রে পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে।

জেলা শিক্ষা মাধ্যমিক কর্মকর্তা কাজী সলিম উল্লাহ বলেন, সুশৃঙ্খলভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের ৩০ মিনিট আগে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে যেতে বলা হয়েছে।

প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক বলেন, পরীক্ষার সময় সব কোচিং সেন্টার বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা অমান্য করলে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আটঘরিয়া

আটঘরিয়ায় ৩ কেন্দ্রে এসএসসি ও সমমানের মোট পরীক্ষার্থী ৩০৯৬, উপস্থিত ৩০৩২, অনুপস্থিত ৬৪, বহিষ্কার নাই

পাবনার আটঘরিয়া উপজেলায় গতকাল (বৃহস্পতিবার) ৩ কেন্দ্রে শুরু হওয়া এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় প্রথম দিনে মোট ৩০৯৬ জনের মধ্যে অংশগ্রহণ করে ৩০৩২ জন এবং অনুপস্থিত ছিল ৬৪ জন। প্রথম দিনের বাংলা প্রথমপত্র পরীক্ষায় কোন বহিষ্কার নাই। সকাল ১১.০০টা থেকে সকল কেন্দ্রে ২ ঘন্টা ব্যাপী পরীক্ষা শান্তিপূর্ণভাবেই অনুষ্ঠিত হয়।

কেন্দ্র সচিবদের সূত্রে জানা গেছে, আটঘরিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১১ স্কুলের মোট সাধারণ পরীক্ষার্থী ১১০৯ ও ভোকেশনাল পরীক্ষার্থী ২৯৯ মিলে মোট ১৪০০ পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশগ্রহণ করে ১৩৭৭ জন, অনুপস্থিত ২৩ জন। দেবোত্তর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ১৮ স্কুলের মোট ১২১৬ পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশগ্রহণ করে ১২০১ জন, অনুপস্থিত ১৫ জন।

অপরদিকে চাঁদভা সিনিয়র মাদরাসা কেন্দ্রে ১৬ দাখিল মাদরাসার দাখিল পরীক্ষার্থী মোট ৪০০ জনের মধ্যে অংশগ্রহণ করে ৩৭৪ জন, অনুপস্থিত ২৬ জন।

প্রথম দিনের পরীক্ষা শান্তিপূর্ণভাবেই শেষ হয় এবং কোন কেন্দ্রে বহিস্কার নাই।

সিংড়া

নাটোর
সিংড়া, নাটোর

দুই হাত নেই। ডান পা নেই। বাঁ পা রয়েছে, তাও আবার স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক ছোট। পায়ের আঙুলের ফাঁকে কলম রেখে দাখিল পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে প্রতিবন্ধী রাসেল মৃধা। বৃহস্পতিবার সিংড়া পৌর
এলাকার শোলাকুড়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা কেন্দ্রে দাখিল পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করে অদম্য রাসেল।

প্রতিবন্ধী পরিক্ষার্থী রাসেল মৃধা সিংড়া পৌর শহরের শোলাকুড়া মহল্লার দিনমজুর আব্দুর রহিম মৃধার ছেলে ও শোলাকুড়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার ছাত্র। অভাব-অনটনের মাঝেও প্রতিবন্ধী রাসেল মৃধার
লেখাপড়ার প্রতি আলাদা স্পৃহা দেখে তার দরিদ্র বাবা-মা হাল ছাড়েননি।

তার উচ্চ শিক্ষার সেই স্বপ্ন আজ পূরণ হতে চলেছে। সে বিগত দিনে পিএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় সাফল্যের সাথে উত্তীর্ণ হয়।

পরিক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে লেখাপড়ার প্রতি প্রবল আগ্রহ দেখে মুগ্ধ হন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম সামিরুল ইসলাম।

রাসেল মৃধার বাবা আব্দুর রহিম মৃধা বলেন, লেখাপড়ার প্রতি ছেলের আগ্রহ দেখে দিনমজুরী করে পড়াশোনা করাচ্ছি। লেখাপড়া শিখে ছেলে একদিন আমাদের মুখ উজ্জল করবে।

শোলাকুড়া ইসলামিয়া আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোশাররফ হোসেন বলেন, রাসেল মৃধা এবছর আমার প্রতিষ্ঠান থেকে দাখিল পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে। বিগত পরিক্ষাগুলোতেও সে কৃতিত্বের সাথে সাফল্য অর্জন করেছে। আমরা আশাবাদী রাসেল এবারও ভালো ফলাফল অর্জন করবে। লেখাপড়া শিখে প্রতিষ্ঠিত হয়ে দেশ ও জাতির সেবা করতে পারে সেজন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন অধ্যক্ষ।

ভেড়ামারা

ভেড়ামারায় ৪ টি কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

ভেড়ামারা
ভেড়ামারা, কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়া ভেড়ামারা উপজেলায় এবার ৪ টি কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ৪৮৩ জন কারিগরি শিক্ষার্থীসহ মোট ২ হাজার ৫৭০ জন এসএসসি পরিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। প্রথম দিন শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

কেন্দ্র গুলো হলো-ভেড়ামারা সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, ভেড়ামারা সরকারি পাইলট গার্লস স্কুল, সবুজ কলি আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ভেড়ামারা আলিম মাদ্রাসা।

গতকাল বৃহস্পতিবার পরিক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোছা. নাছরিন বানু, ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীনেশ সরকার, জেলা শিক্ষা অফিসার মো. রমজান আলী আকন্দ, উপজেলা মধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ফারুক আহম্মেদ প্রমুখ।

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর

ফুলবাড়ীতে এসএসসি ও সমমানের, পরীক্ষায় প্রথম দিনে অনুপস্থিত ৩৩

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে শান্তিপূর্ণভাবে গতকাল বৃহস্পতিবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১১টা থেকে উপজেলার চারটি পরীক্ষা কেন্দ্রের মাধ্যমে এসএসসি, দাখিল ও ভোকেশনাল থেকে দুই হাজার ১৯ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। পরীক্ষার প্রথম দিনেই ৩৩ জন অনুপস্থিত ছিল।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলা থেকে এসএসসি থেকে এক হাজার ২১৯ জন, মাদ্রাসা বোর্ডের দাখিলে ৪৩৮ জন, কারিগরি বোর্ডের অধিন এসএসসি ভোকেশনালে ৩৩৩ জন এবং দাখিল ভোকেশনালে ২৯ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে।

বৃহস্পতিবার প্রথম দিনের পরীক্ষায় এসএসসিতে ১৩ জন, ভোকেশনালে ৯ জন ও মাদ্রাসায় ৮ জন, দাখিল ভোকেশনালে ৩ জনসহ ৩৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অনুপস্থিত ছিল।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রিয়াজ উদ্দিন বলেন, চারটি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করা হয়েছে। প্রত্যেকটি পরীক্ষা কেন্দ্রে অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ ও নকল মুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিরামপুর (দিনাজপুর)

বিরামপুরে শান্তিপূর্ণভাবে এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

Birampur
বিরামপুর, দিনাজপুর

দিনাজপুরের বিরামপুরে শান্তিপূর্ণভাবে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় দিকে পরীক্ষা শুরু হয়ে চলে দুপুর ১টা পর্যন্ত। প্রথম দিন অনুষ্ঠিত হয় বাংলা প্রথমপত্রের পরীক্ষা। জানা গেছে, এবছর পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে। তিনটি বিষয়ে পরীক্ষা হবেনা।

পরীক্ষার জন্য ২০ লাখ ২১ হাজার ৮৬৮ জন শিক্ষার্থী নিবন্ধন করেছে। বিরামপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার নুর আলম জানান, বিরামপুর উপজেলায় এবার এসএসসি ১,৯২১ জন, দাখিল ৫০৬ জন, কারিগরী ৪১৬ জনসহ সর্বমোট ২,৮৪৩ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে।

তিনি আরো জানান, দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডে এবার মোট পরীক্ষার্থী ৩৪ হাজার ২৩৪ জন ৷ গত জুন মাসে এসএসসি পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলেও বন্যার কারণে পরীক্ষা পিছিয়ে ১৫ সেপ্টেম্বর তারিখ নির্ধারণ করা হয়। বিরামপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব আরমান আলী জানান, তাঁর কেন্দ্রে এসএসসি সাধারন ৪১৪ জন কারিগরি ১৪৯ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন৷

এসময় বিরামপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও বিরামপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয় দুইটি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন, বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত, উপজেলা একাডেমি সুপারভাইজার আব্দুস সালাম ও পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন কর্মকর্তা জনাব রফিকুল আলম। পরীক্ষা কেন্দ্রে পরিদর্শনে এসে বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার সবকটি কেন্দ্র পরিদর্শন করছি। পরীক্ষা কেন্দ্রের পরিবেশ অনেক ভালো। পরীক্ষার্থীরা উৎসব মুখর পরিবেশে সুষ্ঠু সুন্দর ভাবে পরীক্ষা দিচ্ছে। এছাড়াও সকল পরীক্ষার কেন্দ্রের আইন-শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রয়েছে বলেও তিনি জানান।
 


 আরও পড়ুনঃ

 আরও পড়ুনঃ


একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন

[gs-fb-comments]